pytheya.blogspot.com Webutation

২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬

মুসাইলিমা আল-কাজ্জাব: এক ভন্ডনবীর উপাখ্যান।


মুসাইলিমার পুরো নাম মুহম্মদ হাসান মুসাইলিমা বিন সুমামা বিন কবির বিন হাবিব। তার জন্ম বনু হানিফা গোত্রে। এই গোত্র বনু বকরের (পরবর্তীতে রাবিয়া) একটি খৃষ্টান শাখা এবং নজদে বসবাসকারী আরব গোত্রগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় গোত্র। এরা মূলত: উত্তর আরব থেকে গিয়ে সেখানে বসতি স্থাপন করে। ৫০৩ সিইতে তারা মধ্য আরবের কিন্দা সাম্রাজ্যে নেতৃত্বদানকারী শক্তি হিসেবে অবির্ভূত হয়। বনু বকরেরা বাস করত অাল-ইয়ামামায় এবং তারা আল হিজরকে (বর্তমান আর-রিয়াদ) তাদের রাজধানী করেছিল।-[যোসেফ চিলোদ, পৃ.১৪]


৬২৮ সিইর জুনে, কুরাইশদের সাথে হুদা্ইবিয়ার সন্ধির কিছু পূর্বে, নবী মুহম্মদ ইয়ামামার শাসক ও বনু হানিফা গোত্রের প্রাক্তন প্রধান হাওদা বিন আলীকে ইসলাম গ্রহণের দাওয়াত দিয়ে এক পত্র দিয়েছিলেন। তখন হাওদা তার ইসলাম গ্রহণের শর্ত হিসেবে নবীজীর কাছে তার নব্যূয়তের অংশীদারিত্ব অথবা উত্তরাধিকারীত্বের স্বীকৃতির প্রস্তাব রাখে, যা নবীজী কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত হয়।৬৩০ সিইতে হাওদার মৃত্যুর পর মুসাইলিমা সাফল্যজনকভাবে নিজেকে তার জায়গায় সুপ্রতিষ্ঠিত করে এবং ইয়ামামার পূর্বাঞ্চলের এক বৃহৎ এলাকা নিজ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে যা ছিল মূলত: আবাদি জমি এবং সেখানে প্রচুর ফসল উৎপন্ন হত।


নবীজীর মৃত্যুর পূর্ববর্তী বৎসরে সে ইয়ামামায় আগত ও সেখানে বসতি স্থাপনকারী ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গোত্রগুলো ও ইয়ামামাবাসীর মধ্যে অানুগত্যের ভিত্তিতে সামাজিক শৃংখলা প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়।পরে সে সেখানে একটি নিরাপদ এলাকা (হারাম) গড়ে তোলে, যার কিছু জায়গায় তার সাথে আনুগত্যের বন্ধনে আবদ্ধ কিছু পরিবারকে বসবাস করতে দেয়। সূত্রমতে, হারাম পরিচালনায় দূর্ণীতি ছিল এবং বনু উসায়েদ, যারা এটির পরিচালনা করত, তারা অন্যদের সাথে দূর্ব্যবহার করত।


যে বছর প্রচুর ফসল ফলত, যাযাবর বনু আসাদ ইয়ামামার গ্রামগুলোতে হানা দিত এবং লুটপাট করে এনে তা রাখত মুসাইলিমার প্রতিষ্ঠিত পবিত্র হারামের অভ্যান্তরে। সতর্ক করা সত্ত্বেও একের পর এক তা হতে থাকলে ইয়ামামাবাসী বনু আসাদকে হারাম এলাকা থেকে বের করে দেবার প্রস্তুতি নিল। কিন্তু মুসাইলিমা তাদেরকে নিবৃত্ত করে জিব্রা
ইলের দোহাই দিয়ে একথা বলে: “স্বর্গ থেকে আমার কাছে যিনি আগমন করেন তার জন্যে অপেক্ষা করা,” তারপর প্রকাশ করে: “শপথ রাতের অন্ধকারের এবং কাল নেকড়ের, আসাদগণ হারামের পবিত্রতা বিনষ্ট করেনি।”
তখন ইয়ামামীরা বলেছিল- “হারামের অর্থ কি তাহলে নিষিদ্ধকে অনুমোদিত আর আমাদের সম্পত্তি ধ্বংস করা?”

পরবর্তীতে, বনু আসাদ আবারো ইয়ামামায় হানা দেয় এবং আবারো মুসাইলিমা তার অনুসারীদেরকে পবিত্র এলাকায় প্রবেশে বাঁধা দেয়, তার দোহা
ই দিয়ে, “যিনি তার কাছে আগমন করেন” এবং এই বাণী প্রকাশের মাধ্যমে- '[I swear] by the dark night and by the softly treading lion, the Usayyid cut neither fresh nor dry.'-( Tabarï, pp. 1932; cf. Tabari, Chronique, p. 294.)


সাবার রানী বিলকিস
ইয়ামামার দক্ষিণে রয়েছে সেই ঐতিহাসিক নগরী সাবা, যার রানী বিলকিস জেরুজালেমে নবী শলোমনের কাছে গিয়েছিলেন। এ নগরী নবী মূসার আমল থেকেই যাদু ও মায়া বিদ্যা চর্চার কেন্দ্রভূমি ছিল। সেখানে বসবাসকারীগণ ছিল ম্যাজিবাদী- অগ্নি উপাসক, যারা অালোক এবং অন্ধকারকে তাদের ধর্মনীতির অন্তর্ভূক্ত করেছিল। এতে কালক্রমে অন্ধকারের শক্তি তথা জ্বিণ তাদের ধর্মে উপাসনার অংশ হয়ে যায়। ফলে আরাধনাকারীরা আবির্ভূত হয় ভাববাদী তথা গণক ও সূতসায়ার রূপে। অজ্ঞ মানুষ তাদের নানান ইচ্ছে পূরণে এদের স্মরণাপন্ন হত। যেমন-

‘আর শলোমনের রাজত্বে শয়তানেরা যা আওড়াত তারা (সাবাবাসীরা) তা মেনে চলত। শলোমন কূফর করেনি, বরং শয়তানই কূফর করেছিল। তারা মানুষকে শিক্ষা দিত (সেই) জাদু যা বাবিল শহরের দুই ফেরেস্তা হারুত ও মারুতের উপর অবতীর্ণ হয়েছিল।- [২:১০১]


অর্থাৎ সাবাতে জাদুকর ও সূতসায়ারদেরকে জাদু শিক্ষা দিত শয়তান জ্বিণেরা। আর তারা তাদেরকে ‍সেই জাদু শিক্ষা দিত, যা অবতীর্ণ হয়েছিল বাবিলে বসবাসকারী ফেরেস্তা হারুত ও মারুতের উপর। অর্থাৎ ঐ ফেরেস্তাদ্বয়ের কারণে সাবা নগরীতে যাদু, মায়া ও ডাকিনী বিদ্যার প্রচলন ও ব্যবহার বহূলরূপে বৃদ্ধি পায়।


আর সূতসায়ারদের ভাববানীও ছিল তেমনি এক বাণী যা তারা পেত জ্বিণদের কাছ থেকে। ঐসব বাণী রচিত হত বিশেষ ধাঁচে, বিশেষ ছন্দে, যার কিছু ফলত, কিছু কখনও ফলত না। আর বাণী না ফললে তারা প্রার্থীর রীতিপালনের ত্রুটির উপর দোষ চাপাত। তথাপি, সমাজে তাদের সম্মান ও কদরে কখনও কোন ঘাটতি ছিল না।


জনসংখ্যার চাপ, যুদ্ধের ধ্বংসযজ্ঞ, ধর্মীয় বিরোধ, পশুপালন প্রভৃতি কারনে মানুষ এক স্থান থেকে অন্যত্র বসতি স্থাপন করত। এভাবে হিজাজে আগতরা যখন অভিবাসীরূপে সেখানে বসবাস গড়ে তোলে, তখন তারা সাবার ঐসব গণক, জাদুকর, ওঝা ও সূতসায়ারদের সংস্পর্শে আসে। অত:পর তারা তাদের সামাজিক অবস্থান ও প্রতিপত্তিতে আকৃষ্ট হয়ে ঐসব বিদ্যার চর্চা ও আরাধনা শুরু করে। হিজাজে এ ধারাই চলছিল। কিন্তু হঠাৎ করে বনি কুরাইশ গোত্রে নবী আবির্ভূত হলে তারা সেদিকে দৃষ্টি দিল। আর নবীর প্রতি অনুসারীদের ভক্তি ও শ্রদ্ধা অবলোকন করে নিজেরাও নবী হয়ে গৌরাবান্বিত হতে চাইল। তাছাড়া এমনিতেই হিজাজের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতি গোষ্ঠী, তাদের গোত্রগত কৌলিণ্য ও সম্মানকে বিশেষ মর্যাদায় দেখত। আর সূচতুর ঐসব জাদুকর ও সূতসায়ারগণ একেই মোক্ষম অস্ত্র হিসেবে কাজে লাগায় এবং নবী মুহম্মদের মৃত্যুর কাছাকাছি সময়কালটাকে উপযুক্ত বিবেচনা করে তারা নব্যূয়ত প্রাপ্তির দাবী করে বসে। ফলে প্রায় প্রতিটি গোত্র থেকেই একের পর এক তথাকথিত নবীর আগমন ঘটতে থাকে।


৯বম হিজরীর শেষ দিকে নবীজী শাসনকর্তাগণ ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গকে ইসলাম গ্রহণের আমন্ত্রণ জানিয়ে চারিদিকে দূত প্রেরণ করেছিলেন। এমনিভাবে মুসাইলিমার কাছেও দূত পৌঁছেছিল। এতে বনু হানাফি গোত্রের একপ্রতিনিধি দলের সাথে সে মদিনায় আগমন করে এবং অবস্থান করে কাইস্যা কাননে, যা ছিল আল-হারিছের অবকাশকালীন গৃহ। এই আল-হারিছ ছিল মদিনার সম্ভান্ত ইহুদি গোত্র বনু নাজ্জারের বংশোদ্ভূত একজন আনসার। তার কন্যা কাইস্যা বিনতে আল-হারিছের সাথে মুসাইলিমার বিবাহ হয়েছিল। আর সে ছিল কাইস্যার ২য় স্বামী।


পরদিন সকালে প্রতিনিধিদল নবীজীর সঙ্গে সাক্ষাত করে এবং তার সঙ্গে কথাবার্তা বলার পর তারা নিজেদের মধ্যে আলোচনার করে ইসলাম গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। তারপর যখন তারা ইসলাম গ্রহণ করে,নবীজী তার রীতি অনুসারে তাদের প্রত্যেকে উপহার প্রদান করেন। ঐসময় তাদের একজন জানায় যে, তাদের এক সাথী ক্যাম্পে রয়ে গেছে তাদের বাহন উটগুলো দেখাশোনার কাজে। তখন নবীজী বলেছিলেন, “সে তার সঙ্গীদের মাল-সামানা দেখাশোনার কাজে পেছনে থেকে যাওয়া কর্তব্য জ্ঞান করেছে বলে তার মর্যাদা তোমাদের কারো থেকে কোন অংশে কম নয়।” তিনি তার জন্যেও উপহার দিলেন।


ক্যাম্পে ফিরে তারা মুসাইলিমাকে তার উপাহার দিয়ে বলে যে, সে তাদের সাথে থেকে ইসলাম গ্রহণ করতে না পারলেও তাদেরই একজন হিসেবে তাকে গণ্য করা হয়েছে। এ কথা শুনে সে তখনই নিজেকে মুসলমান হিসেবে ঘোষণা দেয়। তারপর তারা ইয়ামামায় ফিরে গিয়ে নিজেদের গোত্রকে ইসলামের ছায়াতলে নিয়ে আসে এবং সেখানে একটা মসজিদ নির্মাণ করে প্রত্যাহিক নামাজ কায়েম করে।


মদিনাতে গিয়ে মুসাইলিমা নবীজীর প্রতি তার শিষ্যদের সমীহ এবং তার উচ্চ মর্যাদা ও সম্মান লক্ষ্য করে নিজেও নবী হবার জন্যে অনুপ্রাণিত হয়। আল-জাহেয বলেন, নব্যূয়ত দাবী করার পূর্বে, জ্যেতিষশাস্ত্র, মায়াবিদ্যা ও জাদু শেখার জন্যে সে আরব ভূমি [ধর আল-আরব] ও পারস্যের [অাল-অাযিম] মধ্যবর্তী সকল বাণিজ্যিক শহরগুলো ভ্রমন করে এবং তারপর নিজ গোত্রে ফিরে এসে নব্যূয়ত দাবী করে বসে। 


ইবনে কাছিরও তার সিরাত গ্রন্থে মুসাইলিমার জাদু প্রদর্শনীতে পারদর্শীতার কথা উল্লেখ করেছেন। তার কথায়- মুসাইলিমা তার জাদু দিয়ে সমবেত জনতাকে বিষ্ময়াভূত করতে পারত। অার সে তার এই দক্ষতাকে কাজে লাগিয়েই মানুষকে নিজ বলয়ে ধরে রাখত। তাছাড়া তার পোষাক পরিচ্ছদও ছিল পূণ্যবাণ ব্যক্তি ও নবীগণের অনুরূপ। ফলে মানুষ সহজেই তার ক্ষমতাকে ঐশ্বরিক দান বলে বিশ্বাস করতে প্ররোচিত হত।


মুসাইলিমার বেশকিছু জাদুকার্য সিরা লেখকরা লিপিবদ্ধ করেছে, যেমন,- সে খুর সহজেই একটা আস্ত ডিম বোতলে ভরে ফেলতে পারত; একটা পাখির সব পালক ছাড়িয়ে ফেলে তা আবার লাগিয়ে দিতে পারত যাতে সে আবার উড়তে পারে,ইত্যাদি। ফলে তার জাদুকে অলৌকিক ভেবে কিছু অজ্ঞলোক তার চারপাশে জড় হয়। আর সে তার তাদেরকে বিশ্বাস করাতে সক্ষম হয় যে, দয়াময় খোদার কাছ থেকে, ফেরেস্তা জিব্রাইলের মাধ্যমে তার কাছে ওহী নাযিল হয়। তবে মজার ব্যাপার হচ্ছে, সে নবী মুহম্মদের নব্যূয়ত অস্বীকার করেনি, বরং দাবী করে যে, তাকে তার সাথে নব্যূয়ত শেয়ার [ভাগাভাগি] করে, তার সহযোগী হিসেবে পাঠানো হয়েছে।


ইবনে কাছির বলেন, মুসাইলিমা তার কাছে আগত কথিত ওহীগুলো এমনভাবে উপস্থাপন করত যেন তা ঐশীবাণী। আর লোকদেরকে বলত যে, মুহম্মদ তার সাথে ক্ষমতা ভাগ করে নিয়েছেন। এমনকি সে নিজেকে রহমান হিসেবে পরিচয় দিত অর্থাৎ ঐশ্বরিক কিছু গুণের সঙ্গে সে নিজেকে যুক্ত করে নিয়েছিল। এতে তার গোত্রের অনেকে যারা ইতিপূর্বে ইসলাম গ্রহণ করেছিল, নবী মুহম্মদের পাশাপাশি তাকেও তারা নবী হিসেবে স্বীকার করে নিল।


ধীরে ধীরে মুসাইলিমার প্রভাব এবং ক্ষমতা তার গোত্র মাঝে বৃদ্ধি পেল। লোকেরা তাকে “রহমান আল-ইয়ামামা” বলতে শুরু করল। আরো কিছুকাল পরে, পুরো গোত্র তার সাথে একাত্ম হল। তারপর সে তার গোত্রের একদল বীর যোদ্ধার সাথে মদিনায় এল এবং কাইস্যা কাননে অবস্থান করল।


আগত হানাফিগণ অত:পর নবীজীর সাথে সাক্ষাৎ করে তার কাছে প্রস্তাব রাখেন মুসাইলিমাকে নবী হিসেবে স্বীকৃতি দেবার ও আরবের উপর তার সাথে ক্ষমতা ভাগাভাগি করে নেবার। এমন অযৌক্তিক দাবীর কথা শুনে নবীজী তার হতে ধরা শুকনো একটা খেজুর শাখার প্রতি ইঙ্গিত করে এমন কি তার একটি আঁশ পর্য়ন্ত তাকে দিতে অস্বীকার করেন। 


পরদিন সকালে প্রতিনিধিগণ আবারো নবীজীর সাথে সাক্ষাৎ করার প্রস্তুতি নিল। ঐ সময় মুসাইলিমা ও তার স্ত্রী তাদের উটের পরিচর্যা করছিল। সে তাদেরকে বলল, “তাকে বোলও, যদি সে আমাকে তারপরে নব্যূয়তের উত্তরাধিকারীত্বে সম্মত হয়, তবে আমি তাকে অনুসরণ করব।”


তারপর ঐ প্রতিনিধিদল যখন মসজিদ উন নব্বীতে পৌঁছিল, তখন নবীজী সাবেত বিন কায়েসকে সঙ্গে নিয়ে তাদের সাথে দেখা করতে এলেন। তার হাতে গতদিনের সেই মরা খেজুর ডালটাও ছিল। প্রতিনিধিরা তখন তার কাছে সংশোধিত প্রস্তাবটি রাখে। তখন নবীজী তাদেরকে বিগত রাতে দেখা একটা স্বপ্নের কথা বলেন। তিনি স্বপ্নে দেখেন, তিনি দু’টি স্বর্ণের ব্রেসলেট পরে অাছেন যা তাকে অস্বস্তি দিচ্ছিল। তখন তাকে বলা হল সেগুলোকে গুড়িয়ে দূর করে দিতে এবং তিনি যখন তা করলেন, তখন তা অদৃশ্য হয়ে গেল। তিনি ঐ ব্রেসলেট দু’টোর অর্থ করেন দু’জন মিথ্যেবাদী-মুসাইলিমা ও আসওয়াদের প্রতিরূপ হিসেবে। 


“সুতরাং,” তিনি বললেন, “সে ফিরে যাবার পর ধ্বংস হবে। আমি তোমাদেরকে কেবল তাই বলেছি যা আমাকে তার সম্পর্কে দেখান হয়েছে। এ ছাড়া এখানে সাবেত বিন কায়েস রয়েছে, সে তোমাদের প্রশ্নের উত্তর দেবে।” তিনি চলে গেলেন।


১১ হিজরীর মুহররম মাসে ইয়ামামা থেকে আগত দু’জন লোককে মদিনায় দেখা গেল, যারা নবীজীর জন্য একটি পত্র নিয়ে এসেছে মুসাইলিমার কাছ থেকে। নবীজীর সেক্রেটারীদের একজন পত্রটি খুলে নবীজীর সামনে তা পাঠ করলেন। তাতে লেখা ছিল-


“আল্লাহর রসূল মুসাইলিমা হতে আল্লাহর রসূল মুহম্মদের প্রতি-

আসসালামু আলায়কুম!
আমি আপনার অংশীদার; ক্ষমতা আমাদের মধ্যে অবশ্যই ভাগ করতে হবে। পৃথিবীর অর্ধেক আমার, বাকী অর্ধেক আপনার কুরাইশদের। কিন্তু কুরাইশরা লোভী জাতি-তাদের মধ্যে ন্যায়বিচার নেই।’

নবীজী এই চিঠির বিষয়বস্তু জানতে পেরে দূতদ্বয়ের দিকে ফিরে মুসাইলিমার সম্পর্কে তাদের কি বক্তব্য তা জানতে চাইলে, তারা উত্তরে বলল যে, তাদেরও ঐ একই বক্তব্য যা মুসাইলিমার। তখন নবীজী বলেন, “যদি তোমরা দূত ও বার্তাবাহক না হতে তবে আমি তোমাদেরকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিতাম।” তিনি আরও বলেছিলেন, “যখন তোমরা ইসলাম গ্রহণ করেছ এবং আমার নব্যূয়ত সম্পর্কেও অবহিত, তখন কেন তোমরা এমন একজন মাথামোটাকে অনুসরণ করতে গেলে পবিত্র ধর্ম ইসলাম পরিত্যাগ করে?”


নবীজী মূলত: মুসাইলিমার নব্যূয়তে অংশীদারিত্ব অথবা তারপরে উত্তরাধিকারিত্বের দাবী প্রত্যাখ্যান করেন। তবে তিনি তার সেক্রেটারীকে ডেকে পত্রের একটি সযত্ন প্রতিউত্তরের নির্দেশনা দেন। 


“পরমদাতা ও দয়ালু আল্লাহর নামে-

আল্লাহর রসূল মুহম্মদ থেকে মিথ্যবাদী মুসাইলিমার প্রতি-
‘যারা সত্যপথের অনুসারী তাদের প্রতি সালাম। পৃথিবী আল্লাহর, তিনি যার প্রতি সদয় হন তাকেই দুনিয়ার কর্তৃত্ব দান করেন। কেবল পরহিজগারদের জন্যেই পরকাল (শুধু তারাই সুফল লাভ করবে, যারা আল্লাহকে ভয় করবে)।’

(মোহর):

রসূল আল্লাহ।” -(অাল-তাবারী)

এই চিঠিতে নবীজী মুসাইলিমাকে মিথ্যাবাদী হিসেবে সম্বোধন করেছেন। আর তখন থেকে মুসলমানগণ তাকে মুসাইলিমা আল-কাজ্জাব বা মিথ্যবাদী মুসাইলিমা বলে সম্বোধন করে আসছে।


এদিকে পত্র নিয়ে নবীজীর দূতদ্বয় ইয়ামামায় পৌঁছিলে মুসাইলিমার লোকেরা তাদেরকে বন্দী করে তার সামনে হাজির করে। ‍অার সে প্রচলিত রীতির বিপরীতে তাদের সাথে কুকুরের মত ব্যবহার করে এবং তাদেরকে তরবারীর নীচে রাখে। তারপর সে তাদের কাছে- সেও মুহম্মদের মত একজন নবী, তার স্বীকারোক্তি দাবী করে। তখন তাদের একজন ঐ স্বীকারোক্তি দিয়ে দিল যখন তার গর্দানে চেপে থাকা তরবারী চামড়া ভেদ করে মাংসের গভীরে প্রবেশ করছিল। আর তাতে সে তার জীবন রক্ষা করতে পারে বটে, তবে অপরজন স্বীকারোক্তি দিতে অস্বীকার করে বসে। এতে মুসাইলিমা তার হাত ও পা প্রতিটি গিঁট থেকে কেটে একে একে বিছিন্ন করে। প্রতিবার অঙ্গ কাটার সে তার কাছে স্বীকারোক্তি দাবী করে, আর সেও তা অস্বীকার করে যায়, যতক্ষণ না তার মৃত্যু হয়। তবে দূত হত্যার অপরাধেও নবীজী মুসাইলিমার বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি সম্ভবত: ঐ সপ্নের কারণে যা আমরা ইতিমধ্যে উপরে উল্লেখ করেছি।


মুসাইলিমার শিক্ষার প্রায় সবই হারিয়ে গেছে। ইবনে কাছির বলেন: সে ঐশীবাণী প্রাপ্তির দাবী করেছিল আলৌকক কাজ ও রোগ নিরাময় করার কাজে। সে নামাজ বিলুপ্ত করেছিল এবং অবাধ যৌণাচার ও মদ্যপানের অনুমোদন দিয়েছিল। অন্যদিকে তাবারী উল্লেখ করেছেন: খৎনা করা,পুত্র সন্তান জীবিত অবস্থায় কোন নারীর সঙ্গে সহবাস করা সে নিষিদ্ধ করেছিল। আর অনুমোদন দিয়েছিল যে কোন দিক ফিরে দিনে তিনবার নামাজ আদায়ের এবং রাতের বেলা উপোসে রমজানের রোজা করার। তবে শুকরের মাংস ও মদ সে নিষিদ্ধ করেছিল।


It was interesting that Musaylimah also took to addressing gatherings as a messenger of Allah just like Muhammad, and would compose verses and offer them, as Qur'anic revelations. Musaylimah learned of Quranic verses and techniques through ar-Rajjàl bin 'Unfuwah, the renown warrior of the Banu Hanifah delegation to Muhammad who later apostasized,-(Baladhuri, p.132; Watt, Medina, p.134; Tabari, p.1932.) or a Qur'ànic teacher sent by Muhammad to the Banu Hanifah who did the same.-(Tabari, pp.1932, 1941; ad-Diyarbakri, p.175; Baladhuri, p.133. Cf. Tabarr, Chronique, pp. 294-297). However, most of his verses extolled the superiority of his tribe, the Banu Hanifa, over the Quraish.


The death of the prophet Muhammad raised the hopes of the community of Musaylimah. In one of the speeches said to have been delivered in that period and which was directed to the Banu Hanifa, Musaylimah stressed the qualities of his people and his land in comparison with Quraish and Mecca:


'What made Quraish more deserving of prophethood than yourselves? They are not greater in number than you; your land is wider than their land. Gabriel descends from heaven like he used to descend to Muhammad.'


Musaylimah claimed that the revelation transmitted to Muhammad had ceased with his death and henceforth it would be transmitted to him alone. The feeling that he was now the sole prophet is expressed in a verse attributed to Musaylimah:


O you, woman, take the tambourine and play, and disseminate the virtues of this prophet! Passed away the prophet of Bani Hashim, and rose up the prophet of Bani Ya'rub. -(Ibn Kathir, Bidhya, vi, 341).


মুসাইলিমার সম্মান ও মর্যাদা এবং তার অনুসারীর সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পেল। আর এতে ইয়ামামাবাসীরাও অনুপ্রাণিত হল, তারা মানষিকভাবে নিরাপত্তা ও শান্তি অনুভব করল। কিন্তু এই অনুভূতিতে আঘাত এল পূর্ববর্তী একজন সূতসায়ারের আগমনে, যে দাবী করল তাকেও নব্যূয়ত দান করা হয়েছে। তার নাম সাজাহ বিনতে আল-হারিছ। সে ছিল তামিম গোত্রের একজন খৃষ্টান, কিন্তু বাস করত বনু তাগলিবের খৃষ্টান আরবদের মধ্যে।


ইসলাম গ্রহণ করা বা না করা ব্যক্তির নিজস্ব ব্যাপার। কিন্তু একবার স্বইচ্ছায় ইসলাম গ্রহণ করে কেউ তা পরিবর্তণ করতে পারে না। কারণ, এ ধর্ম সত্যের। সুতরাং ইসলাম পরিত্যাগ অর্থ সত্যের উপর অপবাদ আরোপ এবং সত্যকে অস্বীকার করার শামিল, যা মানবতার বিরূদ্ধে অপরাধ হিসেবে গণ্য। কারণ তা একদিকে যেমন আল্লাহ ও তাঁর রসূলের উপর মিথ্যে আরোপ করে, তেমনি অন্যদিকে নব্য মুসলমান ও অন্য ধর্মাবলম্বী ব্যক্তিবর্গের সম্মুখে খোদায়ী ধর্মের মর্যাদা ও মাহত্ম্যকে ভূ-লুন্ঠিত করে, এতে সত্য ধর্মের প্রতি আগ্রহী একদল মানুষ নিরুৎসাহিত হয়, যা তাদের পরকালীন জীবনের জন্য অপূরণীয় ক্ষতির কারণ হবে।


মুসাইলিমা ও তার গোত্রীয় লোকেরা ইসলাম সম্পর্কে পূর্ণ অবগতির পর স্ব-ইচ্ছায় তারা মুসলমান হয়েছিল, অত:পর তারা তার মিথ্যে নব্যূয়তের দাবী (যেহেতু কোরআন নব্যূয়তের ধারা সমাপ্তি ঘোষণা করেছিল।) দ্বারা প্রতারিত হয়ে পরকালীন জীবনে এক অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে গেল। প্রকৃত মুসলমান কাউকে সত্য গ্রহণ করার পর তাকে সত্যের খেলাপ ও সত্যের অপলাপ করতে দিতে পারে না। এদেরকে দমন ও কঠোর শাস্তির আওতায় আনা অপরিহার্য্য ছিল।


খেলাফত লাভের পর আবু বকর যখন সাহাবাদের সাথে এই বিষয়ে পরামর্শ করলেন, তখন কেউই প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণে সম্মতি দেয়নি। তখন আবু বকর তাদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, ‘যারা মুসলমান হবার পর, রসূল প্রদত্ত নির্দেশ ও ইসলামকে অস্বীকার করে, তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্রধারণ করা আমার কর্তব্য। যদি আমার বিপক্ষে সব জ্বিণ, মানব ও বিশ্বের যাবতীয় বৃক্ষ-প্রস্তর একত্রিত করে আনা হয় এবং আমার সাথে কেউই না থাকে, তবুও আমি একাই ধর্মের জন্যে এই যুদ্ধ চালিয়ে যাব।’- এই বক্তব্যের পর সাহাবারা এগিয়ে আসে এবং তাকে এক জায়গায় বসিয়ে রেখে বিভিন্ন রণাঙ্গনে সেনাবাহিনী প্রেরণের জন্যে মানচিত্র তৈরী করে ফেলে।


ইবনে কাছির বলেন, মুসাইলিমা ও তুলাইহা নব্যূয়ত প্রাপ্তির দাবী করেছে জানতে পেরে সাজাহ বিনতে আল-হারিছ নাম্নী এক খৃষ্টান নারীও নব্যূয়ত প্রাপ্তির দাবী করে বসে। এ ছিল সেই সময়, যখন খলিফা আবু বকর ধর্মত্যাগীদের দমনে হিজাজের উদ্দেশ্যে মুসলিম বাহিনীকে কয়েকটি গ্রুপে ভাগ করে প্রেরণ করেছেন। সাজাহ এই সংবাদ অবহিত হয়ে মদিনার বিরুদ্ধে অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয় এবং ঐ উদ্দেশ্যে সে তার গোত্রের চার হাজার যোদ্ধাকে একত্রিত করে। তবে মদিনার বিরুদ্ধে অারো অনেকেই তার সাথে যাবার জন্যে ইচ্ছুক ছিল। কিন্তু সে তার ঐ পরিকল্পণা বাতিল করে, যখন জানতে পারে, খালিদ তুলাইহা আল-আসাদীকে পরাজিত করেছে। তখন সে খালিদের থ্রেট মোকাবেলায় মুসাইলিমার সহযোগিতা লাভে ইয়ামামার দিকে অগ্রসর হয়।


তাবারী বলেন, সাজাহর আগমনে মুসাইলিমা একটা শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্যে তাকে আমন্ত্রণ জানায়। সে তাকে তার নব্যূয়তের অংশীদার হিসেবে চিনতে পারে এবং ঘোষণা দেয় যে খোদা কর্তৃক কুরাইশকদেরকে বন্দোবস্ত দেয়া ভূমি সাজাহ ও তার লোকদের জন্যে নির্ধারণ করা হয়েছে এবং অপর অর্ধাংশ মুসাইলিমার। এছাড়াও সে সাজাহকে ঐ বছর ইয়ামামায় উৎপন্ন শস্য নেবার অনুমতি এবং পরের বছর উৎপাদিত ফসল দেবারও প্রতিশ্রুতি দেয়।


প্রাথমিকভাবে মুসাইলিমার সাথে একটা সমঝোতায় উপনীত হয় সাজাহ। তারপর এক আনন্দঘন মুহুর্তে সে তার সম্পর্কে জানতে চায় এবং তার নিকট অবতীর্ণ আয়াতের কিছুটা শোনাতে অনুরোধ করে। তখন সে নরম সূরে ও হৃদয়স্পর্শী কন্ঠে আবৃত্তি করে এ শ্লোক-


"God has been gracious to the pregnant woman; 

He has brought forth from her a living being
that can move from her very midst." -(Ibn Ishaq: P 636-37; Tabari: pp. 1737-38).

মুসাইলিমার এ আয়াত শোনার পর সাজাহ বলে, "All speech-act that had its origin in the unseen powers, all speech-act- that was not a daily mundane use of words, but had something to do with the unseen powers, such as cursing, blessing, divination, incantation, inspiration, and revelation, had to be couched in this form".


মুসাইলিমা তাকে বলে, খোদা তার কাছে প্রকাশ করেছেন যে, জীবনে একজন স্ত্রীলোকের স্থান কেবল শয্যায়। সে আবৃত্তি করে-


"God created women with a wide-open cleft,

And made men as partners for her;
Then we penetrate the clitoris,
And she bears children for us." -(Tabari, pp. 1917-1918).

সাজাহ মুসাইলিমাকে নবী হিসেবে স্বীকার করে, তখন সে বলে: “আমাকে বিবাহ করবে? তাহলে তোমার ও আমার লোকদের নিয়ে আমি সারা আরব জয় করে নেব।” 
পরে তারা দু’জনে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়।


অাল-ইয়ামামা
কয়েকদিনপর সাজাহ জাজিরাতে ফিরে যায় [কারো কারো মতে তিনদিন]। কেননা সে তার গোত্রের লোকদের ছেড়ে থাকতে ইচ্ছুক ছিল না।

মুসাইলিমার উত্থানশক্তি সম্পর্কে আবুবকর ওয়াকিবহাল ছিলেন এবং তার বিরুদ্ধে যুদ্ধে মুসলিম সেনাপতি মনোনীত করেন খালিদ বিন ওয়ালিদকে। তুলাইহাকে পরাজিত করার পর খালিদ খলিফার ঐ আদেশ পান। তখন তিনি তার বাহিনী নিয়ে ইয়ামাম্রার দিকে অগ্রসর হন। যাত্রাপথে তিনি খলিফার অপর এক পত্র মারফত বনু হানাফির যুদ্ধশক্তি, তাদের দক্ষতা ও দু:সাহসের বিষয়ে সম্যক অবহিত হন।

মুসাইলিমার চরেরা খালিদের অগ্রযাত্রার কথা তাকে অবহিত করে। বোথা থেকে ইয়ামামার যাত্রাপথ ওয়াদি হানিফার মধ্যদিয়ে এসেছে এবং জুবাইলার পিছনে এই ওয়াদির উত্তর তীর, আকরাবার বিস্তীর্ণ সমতলভূমি যা আকরাবা থেকে ইয়ামামা এবং আরো দক্ষিণ-পূর্বের বিস্তৃত উর্বর এলাকার বহি:স্থ সীমানা চিহ্নিত করেছে। মুসাইলিমার ইচ্ছে ছিল না তার লোকদের গ্রাম ও শহরগুলো মুসলিম বাহিনী তছনছ করে দিক। এ কারণে সে তার বাহিনী নিয়ে ইয়মামার ২৫ মাইল উত্তর-পশ্চিমে জুবাইলার দিকে অগ্রসর হল এবং জুবাইলার নিকটবর্তীতে, যেখান থেকে আকরাবার সমতলভূমির শুরু সেই স্থানে ছাউনি ফেলল। এই স্থানে ছা্‌উনি ফেলে সে কেবল তার উর্বর আবাদি ফসলী ক্ষেতই রক্ষা করল না বরং অগ্রগামী খালিদের যাত্রাপথও বিপদসংকূল করে দেয়, যাতে খালিদ বাধ্য হন ওয়াদির মধ্যদিয়ে আগমনে, আর তাতে তার বাম উইং থাকবে বনু হানাফির আক্রমণভাগে।

ইয়ামামা থেকে যথেষ্ট দূরে থাকতেই খালিদের চরেরা সংবাদ নিয়ে এল যে, মুসাইলিমা আকরাবার সমতলভূমিতে, ওয়াদি হানিফার উত্তর তীরে ছাউনি ফেলেছে, যার মধ্যদিয়ে ইয়ামামার দিকে যাত্রাপথটি চলে গেছে। খালিদ তখন তার বাহিনী নিয়ে উপত্যাকার মধ্যদিয়ে শত্রুবাহিনীর দিকে অগ্রসর হলেন না। আকরাবার কয়েক মাইল পশ্চিমে তিনি রাস্তা পরিত্যাগ করলেন এবং দক্ষিণ দিক থেকে ঘুরে ওয়াদির মাইল খানেক দক্ষিণে এবং জুবাইলার শহরের বিপরীতে, এক উচ্চভূমিতে উপস্থিত হলেন। ঐ উচ্চভুমি থেকে আকরাবার পুরো সমতলভূমি এবং সামনের সীমানা যা বনু হানিফার বসতি বিস্তৃত করেছে, তার সবকিছুই খালিদের দৃষ্টিতে চলে এল। খালিদ ঐ উচ্চভূমিতে ছাউনি ফেললেন।


ওয়াদি হানিফার উপত্যাকা সীমানা নির্ধারণ করেছিল সম্মুখ যুদ্ধের ক্ষেত্র। উত্তর দিকের তীরটি প্রায় ১০০ ফুট উঁচু হয়েছে, কোথাও ঢালু, কোথাও খাড়ির মত। দক্ষিণ দিকটি প্রায় ২০০ ফুট উচু থেকে ধীরে ধীরে ঢালু হয়ে নেমেছে। মুসলিম যোদ্ধারা ছাউনি ফেলেছে উপত্যাকার প্রায় মাইল খানেক দূরে। দক্ষিণ তীরে বূহ্য রচনা করে দাঁড়িয়েছে মুসাইলিমা তার বাহিনী নিয়ে, তাদের পিছনে রয়েছে আকরাবার বিস্তৃত সমতলভূমি। আর ঐ সমতলভুমিতে, ওয়াদি থেকে মাইল দুয়েক দূরে রয়েছে সুউচ্চ প্রচীর ঘেরা বাগান, যা আবাজ নামে পরিচিত মুসাইলিমার পবিত্র হারাম। আকরাবার যুদ্ধের পর এটা পরিচিত হয় মউত উদ্যান নামে।


বনু হানিফার অবস্থান

শীতকালে, ৬৩২ সনের ডিসেম্বরের ৩য় সপ্তাহ, ১১ হিজরী শাওয়ালের শুরুর দিকের এক প্রভাতে ইয়ামামার যুদ্ধ শুরু হয়। ফজরের নামাজ শেষে যুদ্ধের জন্য দু’দল মুখোমুখি হল। মুসাইলিমার যোদ্ধা ছিল ৪০ হাজার। সে তার বাহিনীকে বিন্যাস করল- মধ্যভাগ এবং বাম ও ডানে দু’টো উইং। বাম উইং এর কমান্ডে ছিল রাজ্জাল, ডান উইংএ মুহাকিম বিন তোফায়েল এবং মধ্যভাগ সে তার নিজের কমান্ডে রেখেছিল। অন্যদিকে খালিদের নেতৃত্বে মুসলিম মুজাহিদ ছিল ১৩ হাজার। খালিদ তাদেরকে ওয়াদি হানিফার দক্ষিণ তীরে মুসাইলিমার অনুরূপ- একটা মধ্যভাগ ও দু’টো উইং-এ বিন্যাস্ত করেন। বাম উইং এর নেতৃত্বে ছিলেন আবু হুদাফা এবং ডান উইং এ জায়েদ, ওমরের জৈষ্ঠ্য ভ্রাতা। আর মধ্যবর্তী অংশ ছিল সরাসরি খালিদের অধীন।


মুসাইলিমার সেনাবাহিনী তিনগুণ বেশী হলেও খালিদ যুদ্ধ জয়ের ব্যাপারে পুরো আশাবাদী ছিলেন, কারণ তিনি নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন তাদের, যারা ছিল “সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় জীবন দানকারীর স্বর্গপ্রাপ্তি সুনিশ্চিত” -খোদায়ী এই প্রতিজ্ঞায় পূর্ণ বিশ্বাসী। তবে বনু হানিফাদের দক্ষতা ও দু:সাহস এ যুদ্ধকে রক্তক্ষয়ী ও কষ্টার্জিত করবে তাতেও তিনি সন্দিহান ছিলেন না। কারণ ইতিমধ্যে আবু বকর তাকে এ ব্যাপারে সতর্ক করেছেন পত্র মারফত। যাহোক, খালিদের নির্দেশ পেয়ে মুসলিম মুজাহিদগণ ওয়াদির উত্তর তীরের দিকে ছুটে গেল, যেখানে মুসাইলিমা তার যোদ্ধাদের নিয়ে বূহ্য রচনা করে অপেক্ষায় ছিল খালিদের আক্রমণ প্রতিহত করার প্রতিজ্ঞা নিয়ে।

পাথুরে দেয়ালের মত করে মুসাইলিমার যোদ্ধারা দাঁড়িয়েছিল। তাদের অনেকে মুসলিমদের আক্রমনে নিহত হল বটে, তবে তাদের সম্মুখভাগ তারা ভেদ করতে দিল না। ধর্মত্যাগীরা যুদ্ধ করল উন্মত্ত হয়ে, এক ইঞ্চি ভূমি না ছাড়ার শপথে তারা মৃত্যূকে বেঁছে নিল। আর মুসলিমগণ বিষ্ময়ের সাথে অনুধাবন করল তারা একটুও অগ্রগতি লাভ করেনি। মুসলিমদের তার দুই উইং ভেদ করার কঠোর প্রচেষ্টার পর মুসালিমা বুঝতে পারল যদি সে এমন আত্মরক্ষামূলক অবস্থানে আরও দীর্ঘসময় থাকে, তবে তাতে মুসলিমদের অগ্রগতি বাড়তে থাকবে। তখন সে তার একজন সেনাপতিকে তার সম্মুখ দলকে প্রতি আক্রমণের নির্দেশ দিল। তখন ধর্মত্যাগীরা সামনে বাড়ল বিশাল এক ঢেউয়ের মত করে, আর তখন মুসলিমগণ নিজেদেরকে এক বিভিষিকার মধ্যে দেখতে পেল, তারা অনুধাবণ করল, তারা পিছু হটে যাচ্ছে। 

মুসলিমগণ ক্রমান্বয়ে পিছু হটতে থাকল, তারপর তা আরও দ্রুতগতির হল, এতে ধর্মত্যাগীরা আক্রমণে আরও দু:সাহসী হয়ে উঠল। আর বিভ্রান্তির মধ্যে মসলিমগণ পশ্চাদুনুসরণ করতে থাকল। তাদের কিছু ক্ষুদ্রদল যুদ্ধক্ষেত্র ত্যাগ করে পালিয়ে যেতে শুরু করল এবং অন্যরাও তাদেরকে অনুসরণ করল। সেনাধাক্ষ্যগণ তাদের পলায়ন প্রতিহতে ব্যর্থ হয়ে দ্রুত পিছিয়ে এলেন তাদের সাথে। মুসলিম যোদ্ধাগণ এখন তাদের ছাউনি অতিক্রম করে বেশকিছু দূরে এসে থামল।

রিদ্দা-আকরাবার যুদ্ধ।
মুসলিম যোদ্ধারা আকরাবার সমতলভূমি পরিত্যাগ করতে শুরু করলে ধর্মত্যাগীরা তাদেরকে ধাওয়া করল উন্মত্তের মত। এ তাদের কোন পরিকল্পণার মধ্যে ছিল না, বরং তা ছিল সহজাত প্রতিক্রিয়া। তারা মুসলিমদের ক্যাম্পে থামল এবং তা তছনছ করে ফেলল। যদ্ধ জয়-পরাজয়ের মাঝে স্থির হয়েছিল এবং বিজয়ের কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছিল না। বরং দৃশ্যত: মুসলিমদের পশ্চাৎপসারণ পরাজয়ের নামান্তর ছিল।

খালিদ এখন পরিস্কার বুঝতে পারলেন ধর্মত্যাগীরা তাদের ভন্ড নবীর উপর বিশ্বাস একটুও হারায়নি।সুতরাং হতাহতের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনার একমাত্র উপায় হল মুসাইলিমার মৃত্যু, যা তাদের মনোবলকে দমিয়ে দেবে। কিন্তু সে তার বিশ্বস্ত অনুসারীদের দ্বারা পরিবেষ্টিত অবস্থায় নিরাপদে রয়েছে। তাকে হত্যা করতে হলে তাকে তার নিরাপদ অবস্থান থেকে বের করে আনা দরকার।

তখন খালিদ মুসাইলিমাকে আলোচনার প্রস্তাব দিলেন এবং তাতে সে রাজী হল। তারপর খালিদ যখন তার কাছাকাছি চলে এলেন, সে সতর্কতার সাথে সম্মুখে পা বাড়াল এবং খালিদের থেকে দ্বৈত লড়ার দূরত্বের ঠিক বাইরে গিয়ে থামল। তখন খালিদ তার কাছে জানতে চাইল- “যদি আমরা শর্তে আসতে চাই, কি শর্ত তুমি গ্রহণ করবে?”

Musaylimah cocked his head to one side as if listening to some invisible person who stood beside him and would talk to him. It was in this manner that he 'received revelations'! Seeing him thus reminded Khalid of the words of the Holy Prophet, who had said that Musaylimah was never alone, that he always had Satan beside him, that he never disobeyed Satan, and that when worked up he foamed at the mouth. Satan forbade Musaylimah to agree to terms, and then he turned his face to Khalid and shook his head.

Khalid already determined to kill Musaylimah. The talks were only bait to draw him close enough.He would have to work fast before Musaylimah withdrew to the safety of his guards. Khalid asked another question. Again Musaylimah turned his head to one side, intently listening to 'the voice.' At that instant Khalid sprang at him. Khalid was fast. but Musaylimah was faster. In a flash he had turned on his heels and was gone!

Musaylima was safe once again in the arms of his guards. But in that moment of flight something meaningful happened to the spirit of the two armies, depressing one and exalting the other. The flight of their 'prophet' and commander from Khalid was a disgraceful sight in the eyes of the apostates,To exploit the psychological opportunity which now presented itself, Khalid ordered an immediate renewal of the offensive. The spirits of the Muslims rose as they redoubled their efforts. Then the infidel front broke into pieces the commander of his right wing, Muhakim, who came to the rescue of the apostates."Banu Hanifa!" he shouted. "The garden! The garden! Enter the garden and I shall protect your rear."

মুসাইলিমার যোদ্ধাদের এক বড় অংশ ভেঙ্গে পড়ল এবং তারা বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে চারিদিক দিয়ে পালিয়ে গেল। কেবল তার এক চতুর্থাংশ যোদ্ধা রয়ে গেল যুদ্ধক্ষেত্রে এবং তারা নিজেদেরকে নিরাপদ করতে দেয়াল ঘেরা বাগানের দিকে সরে যেতে লাগল। আর ঐ সময় ছোট একটা দল নিয়ে মুহাকিম পেছন থেকে তাদেরকে নিরাপত্তা দিচ্ছিল। কিন্তু দূর্ভাগ্য তার, খলিফা পুত্র আব্দুর রহমানের নিক্ষিপ্ত তীর তাকে মৃত্যুর দূয়ারে পৌঁছে দিল।

সাত হাজারের কিছু বেশী অনুসারীসহ মুসাইলিমা তার পবিত্র হারামের অভ্যান্তরে আশ্রয় নিল। আর তারা প্রবেশদ্বার বন্ধ করে দিয়ে সুউচ্চ প্রাচীরের দিকে তাকিয়ে নিজেদেরকে বিপদমুক্ত ও নিরাপদ ভাবল।

পড়ন্ত বিকাল। মুসলিম যোদ্ধাদের বড় অংশ এখন দেয়াল ঘেরা ঐ বাগানের কাছাকাছি সমবেত। তারা উদ্বিগ্ন দিনের অবশিষ্ট সময়টুকুর মধ্যে সুরক্ষিত ঐ বাগানের অভ্যান্তরে প্রবেশ করে বিজয়ের মাধ্যমে যুদ্ধের সমাপ্তি টানা নিয়ে। কেননা বাগানের মধ্যে প্রবেশের কোন পথ এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। দেয়াল অপ্রবেশ্য বাঁধা হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে আর তার প্রবেশ দ্বার ভেতর থেকে বন্ধ। অবরোধ ভাঙ্গার কোন সরঞ্জাম নেই, আবার সময়ও নেই তা তৈরী করে নেবার।

While Khalid searched his brain for ideas, an old warrior by the name of Baraa bin Malik, who stood in the group that confronted the gate, said to his comrades "Throw me over the wall into the garden." His comrades refused, for Baraa was a distinguished and much-respected Companion, and they hesitated to do something which would certainly result in his death. But Baraa insisted. At last his comrades agreed to his request and lifted him on their shoulders near the gate. He got his hands onto the edge of the wall, swung himself up and jumped into the garden. In a minute or so he had killed two or three infidels who stood between him and the gate, and before others could intercept him, he had loosened the heavy bolt. The gate was flung open and a flood of Muslims roared through it like water thundering through a breach in a dam. The last and most gory place of the Battle of Yamama had begun.

In the clashes with the Banu Hanifa, a division of the army that came from those Medinans who had assisted Muhammad in his emigration from Mecca (the Ansar) attacked Yamama and fought bravely together with the Meccans who had fled with Muhammad (the Muh'jirin). They were summoned to help out in dangerous situations in the bloody battle of 'Aqrab'.

At the outset, the Banu Hanifa succeeded in repulsing the Bedouin attacks. The solution of Khalid was to put the Bedouin fighters of the army behind the lines of the well motivated and steadfast warriors of the Emigrants (Muhajirin) and Helpers (Ansar).

When Khalid's siege was tightened and the eventual defeat of this pretender became evident some of Musaylimah's simple-minded follower asked him: "What has happened to the occult help and support which you had promised us?"

Musaylimah replied: "There is no news about occult law and help. It was a false promise which I gave you. However, it is incumbent upon you to defend your honour and greatness".However, defense of honour and greatness was of little avail!

This above sayings of Musaylimah shows that he was an eloquent speaker and it also shows that he is not at all the speaker of those insipid sentences, which history has attributed to him, as specimens of his contention with the Holy Qur'an.

মুসাইলিমা নিহত হয় দূর থেকে উড়ে আসা জ্যাভলিনে, যা তাকে এফোঁড় ওফোঁড় করে দিয়ে মাটিতে তাকে গেঁথে ফেলেছিল। আর যখন সে প্রচন্ড যন্ত্রণায় দু’হাতে সেটি তুলে ফেলতে চেষ্টা করছিল, তখন আবু দো’জনা তার তরবারীর আঘাতে তার শির বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। কিন্তু সে মুসাইলিমার নিহত হবার খবর প্রচার করতে পারেনি। শির উঁচু করতেই তার গর্দান থেকে তা লাফিয়ে পড়ে মুসাইলিমার পাশে গিয়ে স্থান নেয়। কারো কারো মতে, ১১ হিজরী বা ৬৩২ সনে মুসাইলিমা যখন নিহত হন, ঐসময় তার বয়স ছিল ১৪০ বা ১৫০ বৎসর।

মুসাইলিমা নিহত হবার খবর ছড়িয়ে পড়লে যুদ্ধ আর প্রলম্বিত হয়নি। ঐসময় অনেকে হতাশা নিয়ে আত্মহত্যার মত সহিংসতায় লিপ্ত হয়। কিন্তু তারা কেবল তাদের যন্ত্রণা ও কষ্টই দীর্ঘায়িত করতে পারল, জীবন রক্ষা করতে পারল না। একসময় তাদের অধিকাংশ আক্রমণ বা আত্মরক্ষার প্রচেষ্টা থামিয়ে দিল এবং হতাশা নিয়ে অপেক্ষা করতে লাগল কোন মুসলিম যোদ্ধার তরবারীর আঘাত যা তাদেরকে হতাশার ঐ কষ্ট থেকে নিস্কৃতি দেবে। আর ঐ সময় সূৃর্য্য অস্ত গেল, শান্ত ও নিস্তব্ধতা নেমে এল ঐ মউত উদ্যানে।

মুসাইলিমার অনুসারীদের প্রগাঢ় বিশ্বস্ততার নানান গল্প কালের প্রবাহেও টিকে আছে। এক মহিলা তার মৃত্যুর কথা শুনে আর্তচিৎকার দিয়ে বলেছিল, “হায়, বিশ্বাসীদের নেতা!” এক আহত বনু হানাফি যোদ্ধা পাশে থাকা এক মুসলিম যোদ্ধাকে অনুরোধ করে তাকে হত্যা করতে যাতে সে তার কষ্ট থেকে মুক্তি পায়। তারপর যখন সে মুসাইলিমার নিহতের খবর জানতে পারল, তখন সে মন্তব্য করল- “হায়! একজন নবীকে ধ্বংস করে দিল তার নিজের লোকেরা।” একথা শুনে ঐ মুসলিম যোদ্ধা তাকে এক “মরণ ঘা” দিয়ে পরপারে পাঠিয়ে দিল।

মুসাইলিমার অনুসারীর এক বহৎ অংশ নিহত হয় দেয়াল ঘেরা তার স্যাক্রেড হারামের অভ্যান্তরে ও তার বহি:স্থ প্রাঙ্গনে। স্থানটি পরবর্তিতে মউত উদ্যান “গার্ডেন অব ডেথ” হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। এই যুদ্ধে মুসলিম যোদ্ধাদের অসীম সাহসিকতার অনেক নমুনা বিভিন্ন উৎসে দেখতে পাওয়া যায়। তবে মুসাইলিমার অনুসারীগণও যুদ্ধ করেছিল নির্ভিকচিত্তে। ফলে বিজয়ী হলেও মুসলমানদেরকে যথেষ্ট মূল্য দিতে হয়েছিল। যুদ্ধে আবু দো’জনা (যিনি ওহুদ যুদ্ধে মানববর্ম হয়ে নবীজীকে তীরের আঘাত থেকে রক্ষা করেছিলেন), আবু হুদাইফা (বাম উইং কমান্ডার), ওমরের ভ্রাতা জায়েদ (ডান উইং কমান্ডার) এবং চার’শ কোরআনে হাফেজসহ প্রায় ১,২০০ মুসলিম নিহত হয়। অন্যদিকে মুসাইলিমাসহ তার অনুসারীরা নিহত হয় ২১ হাজারের মত, যার ৭ হাজার নিহত হয়েছিল ওয়াদির উন্মুক্ত ময়দানে খালিদের ১ম ও ২য় আক্রমণে, ৭ হাজার মুসাইলিমার স্যাক্রেড হারামের অভ্যান্তরে এবং অবশিষ্টরা ছিল তারাই যারা মুসাইলিমা নিহত হবার পরও তার নবূয়্যত অস্বীকার করতে সম্মত হয়নি।

মুসাইলিমা নিহত হবার পর খালিদ নজদের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসবাসকারী বনু হানিফাদের বিভিন্ন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গোষ্ঠীর কাছে মুসলিম যোদ্ধাদের ছোট ছোট দল প্রেরণ করেন তাদের বশ্যতা আদায়ে, ইসলামের ছায়াতলে ফিরে আসার আহ্ববান জানিয়ে। আর প্রেরিত ঐ যোদ্ধা দল তাদের কাছে গিয়ে তাদের বিশ্বাস সম্পর্কে জানতে চায়। মূলত: তারা গোত্রের প্রতিটি সদস্যকে প্রশ্ন করেছিল- সে কার উপর বিশ্বাস করে? মুহম্মদের না মুসাইলিমার?

মুসাইলিমা নিহত এবং বনু হানাফিও তাদের গণ্যমান্য সকল নেতৃবর্গকে যুদ্ধে হারিয়েছিল, তথাপি তারা ছিল দূর্বিনীত কোন ব্যাতিক্রম ছাড়াই। তাদের কেউ অনুশোচনা করেনি, করতে রাজীও হয়নি।[কেবল কয়েকজন এমন অভিমত দিয়েছিল- “তোমাদের মধ্যেও একজন নবী থাকুক এবং আমাদের মধ্যেও একজনকে থাকতে দাও!”] ফলে তরবারীর নীচে দ্বি-খন্ডিত হল অবশিষ্ট প্রায় সাত হাজার হানাফি। তাদের কারো প্রতি কোন রকম দয়া প্রদর্শণ করা হয়নি। কেননা, অনুশোচনায় অস্বীকারকারী প্রত্যেক পূর্ণবয়স্ক পুরুষকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন খলিফা আবু বকর। -(বার্থহোল্ড, ৫০২-৫১১)

মুসাইলিমার নব্যূয়তে বিশ্বাস, তার বেঁচে থাকা শিষ্যদের মধ্যে ইসলামের প্রথম দশক পর্যন্ত টিকে ছিল। তারপর মুয়াবিয়া সাজাহকে জোরপূর্বক আরবভূমি থেকে উৎখাত করলে সে বসরার কূফাতে চলে গেল, ঐসময় মুসাইলিমার বেশকিছু অনুসারীও তাকে অনুসরণ করে এবং তাকে ঘিরে সেখানে বসতি করে। পরে তারা সেখানে একটা মসজিদও নির্মাণ করে নেয়। কূফায় বসবাস গড়ে তোলা মুসাইলিমার সকল অনুসারীরা বনু হানাফির ঐ মসজিদে সমবেত হত এবং প্রায়শ: ঐ মসজিদের মিনার থেকে- “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ ওয়া মুসাইলিমা রসূলুল্লাহ”- ধ্বনি শোনা যেত।

ইবনে মা’সুদ কূফার আমির থাকাকালে জানতে পারলেন যে, নবীজীর নিকট মুসাইলিমার পত্র নিয়ে দূত হিসেবে গমনকারী দু’জনের একজনকে কূফা নগরীতে পুন:রায় দেখা গেছে যে কি-না তখনও মুসাইলিমার নব্যূয়তের উপর বিশ্বাস রাখে। তখন আমির তাকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। তারপর যখন তাকে তার সম্মুখে হাজির করা হল, তিনি তাকে শিরোচ্ছেদ করেন একথা বলে যে, মুসাইলিমার দূতের পরিচয় এখন আর তার নেই। তারপর তিনি মুসাইলিমার সকল অনুসারীকে হাজতে ভরার নির্দেশ দেন। কিছু পালিয়ে যায়, অার কিছু ধরা পড়ে জেলে যায়। পরবর্তীতে, যারা অনুশোচনা করে, তারা জেল থেকে মুক্তি পায়, আর যারা তাদের বিশ্বাস আঁকড়ে থাকে, তাদেরকে শিরোচ্ছেদ করা হয়। ঐ সময় সাজাহ ইসলাম গ্রহণ করে এবং আমৃত্যু তাতে বিশ্বাসী ছিল। 

সমাপ্ত।
সংশোধিত নয়।

# একজন জিজ্ঞেস করেছিল, “ভাই, রিদ্দা যুদ্ধের যৌক্তিকতা কি, বা আপনি কিভাবে এ যুদ্ধকে মূল্যায়ণ করেন?”

@ আমি বললাম- ইসলামে কারো ধর্ম পালনে বাঁধা দেয়া যেমন নিষিদ্ধ তেমনি ইসলাম গ্রহণে জোরজবরদস্তিও নিষিদ্ধ। ইসলাম গ্রহণ করা বা না করা ব্যক্তির সম্পূর্ণ নিজস্ব ব্যাপার। কেননা, মানুষ স্বাধীন ভাবে সৃষ্ট, তাদেরকে দেয়া হয়েছে ভাল-মন্দ পার্থক্য করার জ্ঞান, দেয়া হয়েছে বিবেক। সুতরাং মানুষ তার জ্ঞান ও বিবেক ব্যবহার করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে এ তো খোদা প্রদত্ত অধিকার। যা খোদা দিযেছেন তা ছিনিয়ে নেবার অধিকার কারো নেই। তবে মানুষকে আল্লাহ ও  তাঁর রসূলের উপর মিথ্যে অপবাদ আরোপের অধিকার মানুষকে দেয়া হয়নি। সুতরাং যারা এ অপরাধ সংঘটিত করবে তাদেরকে কঠোর হস্তে দমনের নির্দেশ রয়েছে।

কিন্তু, ইসলাম খোদায়ী ধর্ম- “সত্য ধর্ম” [পৃধিবীর প্রথম মানব আদম এ ধর্মের ভিত রচনা করেন, অত:পর এক লক্ষ চব্বিশ হাজার পয়গম্বর এ ধর্ম প্রচার করেন, যাদের মধ্যে অন্তর্ভূক্ত রয়েছেন নূহ, ইব্রাহিম, মূসা, দাউদ, ঈসা। আর নবী মুহম্মদের মাধ্যমে এ ধর্মের পূর্ণতা পায়] সুতরাং কেউ ইসলাম তথা সত্য গ্রহণ করে অত:পর তা বর্জন করতে পারে না। সত্য অস্বীকার বা খেলাপকারী, সত্যের অপব্যাখ্যা বা অপলাপকারী এবং সত্যের অপবাদকারী মানুষের এবং খোদার শত্রু। ইসলামে একাজ চরম ঘৃণ্য বিবেচিত, কারণ তা মানবতা বিরোধী, আর তা এ কারণে যে, তা সত্যের আলো বঞ্চিত এবং শিক্ষা ও জ্ঞানে পিছিয়ে থাকা একদল মানুষকে বিভ্রান্ত করে তুলতে পারে, যা তাদেরকে অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীণ করবে পরকালে। আর মুসলমান হবার পর কারো দ্বারা মানবতা বিরোধী অপরাধ সংঘটন, ইসলামে মানুষ হত্যার চেয়ে গুরুতর অপরাধ হিসেবে বিবেচ্য। এদেরকে দমনে যুদ্ধের নির্দেশ রয়েছে, যেমন-

আর যদি ভঙ্গ করে তারা তাদের শপথ প্রতিশ্রুতির পর এবং বিদ্রুপ করে তোমাদের দ্বীন সম্পর্কে, তবে কুফর প্রধানদের সাথে যুদ্ধ কর। কারণ, এদের কেন শপথ নেই যাতে তারা ফিরে আসে। -[৯:১২]

আব্দুল্লাহ বর্ণিত: রসুলুল্লাহ বলেন, “একজন মুসলিমের রক্তপাত নিষিদ্ধ যে স্বীকার করে যে, আল্লাহ ব্যতিত অন্যকোন উপাস্য নেই এবং আমি তাঁর রসূল, তিনটি ক্ষেত্র ব্যতিত: হত্যার প্রতিশোধে, বিবাহিত কেউ যে ব্যভিচার করেছে এবং ইসলাম অস্বীকার করে মুসলিম সমাজ পরিত্যাগ করেছে।”-[বুখারী,, খন্ড ৯, কিতাব ৮৩, নম্বর ১৭]

আর এটাই মূলত: আবু বকরকে যুদ্ধে ঠেলে দেয়।

উৎস:
এম জে, কিস্টার, মুসাইলিমা,
দালে এফ আইকেলমান, মুসাইলিমা,
ভি, বার্থহোল্ড, মুসাইলিমা,
এম, ওয়াট, মুসাইলিমা,
ভাক্কা, সাজদাহ,
সহিহ অাল বুখারী,
ইবনে কাছির, সিরাত রসূল আল্লাহ,
ইবনে ইসহাক, সিরাত রসূল আল্লাহ,
ইবনে কাছির, অাল-মিসবাহ আল-মুনির তাহজিব ওয়া তাহকিক তফসির,
ইবনে আবদ আল-বার আল-নামারী, আল-দুরার ফি ইখতিয়ূর আল মাঘজি ওয়াল সিয়ার,
আল-কালাই, অাল-ইকতিফা ফি মাঘাজি রসূল আল্লাহ ওয়াল সালাছা আল-খুলাফা,
আদ-দিয়ারবকরী, তারিখ আল-খামিস ফি আওয়াল আনফুস আন-নাফিস,
আল-নুয়াইরি, নিহোয়াত আল-আরব ফি ফুনিন আল-অাদাব,
ইয়াকুত বিন আব্দুল্লাহ অাল-হামায়ি, মুজাম অাল-বুলদান,
আল-তাবারী, তারিখ অাল-রসূল ওয়া অাল-মুলুক,
ইবনে সা’দ, কিতাব আল-তাবাকাত অাল কুবরা,
অাল-বায়হাকী, অাল-মাহাসিন ওয়াল মাসায়ি,
অাল-বায়হাকী, দালাইল অাল-নবু’ওয়া,
আল-বালাজুরি, কিতাব ফুতুহ অাল-বুলদান,
আল-কালবি, জামোরাত আল-নাসাব,
আল-মাকিরিজি, ইমতা আল-আসমা,
আল-সুহাইলি, রাউদ আল-উনুফ,
অাল-ওয়াকিদি, কিতাব আল-রিদ্দা,
ইসলামিক এনসাইক্লোপিডিয়া,
আল-ইসলাম ডট ওআরজি
উইকিপিডিয়া,
কোরআন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন