pytheya.blogspot.com Webutation

১১ জুলাই, ২০১৪

হাতেম তাঈ: একজন দাতার কিচ্ছা।


হাতেম আল তাঈ বা হাতেম তাঈ-এর পূর্ণ নাম হাতেম ইবনে আব্দুল্লাহ ইবনে সা’দ আত-তাঈ। তিনি বিখ্যাত মূলত: তার মহানুভবতা ও দানশীলতার জন্যে। মধ্যপ্রাচ্য ছাড়াও প্রাচীন ভারতবর্ষে তিনি অতি সুপরিচিত ব্যক্তি। খৃষ্টান এই আরব ব্যক্তিটি ছিলেন তাঈ গোত্রের লোক। এই গোত্রটি আরব উপদ্বীপের মধ্যভাগে হাইলে বসবাস করত।

তাঈ গোত্রের বাসস্থান হাইল।
হাতেম তাঈ এর দানশীলতার কথা সারা প্রাচ্যের লোক সুবিদিত ছিল। এখন পর্যন্ত তিনি তার চরম মহত্ব ও দানশীলতার জন্যে আরবদের মাঝে আইকন হয়ে রয়েছেন। তার নামে একটা প্রবাদ বাক্যই প্রচলিত রয়েছে- “হাতেম এর চেয়েও মহানুভব!!” -কারও দানশীলতার পরিমাপে মানুষ এটি ব্যবহার করে।

হাতেম বাল্যকালেই তার পিতাকে হারিয়েছিলেন। ফলে তিনি তার পিতামহের কাছে মানুষ হন। কথিত আছে, তার মাতা গুনাইয়া বিনতে আফিফ তাঈও অতি দয়ালু ছিলেন। আর সম্ভবত: হাতেম তার মাতার নিকট থেকেই দানশীলতার এ্রই গুণটি উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছিলেন। বলা হয়ে থাকে, হাতেমের দানশীলতার কারণেই তার পিতামহের সাথে তার সম্পর্কের অবনতি ঘটে। তার পিতামহ দান করাকে অপচয় হিসেবে মূল্যায়ণ করতেন। আর এ কারণেই তিনি একসময় হাতেমকে পরিত্যাগ করেছিলেন।-[হামজা, পৃ. ২৮২] 

মাইদানী নাম্নী ১২’শ শতকের একজন আরবীয় লেখক হাতেমকে মূল্যায়ণ করেছেন এভাবে- “Hatim was liberal, brave, wise, and victori­ous; when he fought, he conquered; when he plun­dered, he carried off; when he was asked, he gave; when he shot his arrow, he hit the mark; and whomsoever he took captive, he liberated.” 

আরবের বিভিন্ন গোত্রের অবস্থান।
হাতেম তাঈ-এর জন্মসন সুনির্দিষ্ট নয়, তবে “রজত-উল সূফা” মতে নবীজীর জন্মের প্রায় আট বৎসর পর, ৫৭৮ সনের দিকে তিনি মারা যান। হাইল প্রদেশের তুরাণে অবস্থিত একটি ছোট গ্রামে তার সমাধি রয়েছে (ডি হার্বেলটের মতে)। তিনি খলিফা হারুণ-অর রশিদকে নিয়ে রচিত বিখ্যাত উপন্যাস “আরব্য রজনী”-র একটি অনবদ্য চরিত্র এবং এটিতে তার সমাধির বিস্তারিত বর্ণনাও দেয়া হয়েছে- “Ḥātem’s tomb was built on a hilltop with two stone troughs representing the pots from which he fed the poor, as well as the statues of four mourning maidens…..”- [বার্টন, পৃ. ৯৪-৯৫]

হাতেম তাঈ এর দানশীলতায় লোকে ভাবত- “তার চেয়েও দানশীল লোক কি এ জগতে রয়েছে?” অত:পর তাকে একজন এ প্রশ্ন করেই বসল, “আপনার চেয়ে মহৎ কোন ব্যক্তির সান্নিধ্য কি আপনি কখনও লাভ করেছেন?”
বিনয়ের সাথে হাতেম বললেন, “হ্যাঁ, করেছি।”

অত:পর কোথায়, কিভাবে তার দেখা পেলেন, জানতে চাইলে তিনি বললেন, “একবার মরুভূমির মধ্যদিয়ে পথচলার সময় আমি এক তাঁবুর কাছাকাছি হলাম। আমি দেখলাম ঐ তাঁবুর মধ্যে এক বৃদ্ধা মহিলা বসে, আর তাঁবুর পিছনে খুঁটিতে একটি ছাগল বাঁধা। ঐ বৃদ্ধা আমাকে দেখে এগিয়ে এসে আমার ঘোড়ার লাগাম ধরল যাতে আমি নিরাপদে অশ্বপৃষ্ঠ থেকে নামতে পারি। কিছুক্ষণের মধ্যেই ঐ বৃদ্ধার ছেলে সেখানে এসে পৌঁছিল এবং আমাকে তাদের অতিথি হিসেবে পেয়ে খুবই খুশি হল। বৃদ্ধা তার ছেলেকে বলল, “অতিথিকে অ্যাপ্যায়নের ব্যবস্থা নাও। ছাগলটা জবেহ করে খাদ্য প্রস্তুত কর।”

ছেলে বলল, “মা, প্রথমে আমি কিছু জ্বালানী কাঠ জোগাড় করে আনি।”
বৃদ্ধা বলল, “মরূভূমিতে জ্বালানীকাঠ সংগ্রহে অনেক সময় লাগবে, আর ততক্ষণ আমাদের অতিথিকে ক্ষুধার্ত থাকতে হবে, আর নিশ্চয়ই তা হবে সামাজিক শিষ্টাচার বহির্ভূত।” তখন ছেলেটি তাড়াতাড়ি ঐ ছাগলটি জবেহ করে খাবার প্রস্তুতি শেষে তা আমার সম্মুখে উপস্থিত করল।

খাবার শেষে আমি তাদের আর্থিক অবস্থার বিষয়ে অনুসন্ধান করে পরিস্কার বুঝতে পারলাম ঐ ছাগলটি ছিল তাদের একমাত্র সম্বল যা তারা নির্দ্বিধায় জবেহ করে আমার জন্যে খাদ্য প্রস্তুত করেছে। আমি কৃতজ্ঞ চিত্তে বৃদ্ধাকে বললাম, “আপনি কি আমাকে চেনেন?”

যখন সে মাথা নেড়ে না সূচক উত্তর দিল, তখন আমি তাকে বললাম, “আমি হাতেম তাঈ। আপনারা আমার সাথে আমার গোত্র মাঝে চলুন, যাতে করে আমি আপনাদের আতিথেয়তা করতে পারি এবং আপনাদেরকে প্রচুর উপহার ও উপঢৌকন দেবার সুযোগ লাভ করি।”
বৃদ্ধা গম্ভীর স্বরে বলল, `আমরা যেমন আমাদের অতিথির নিকট থেকে কোন পুরস্কার পাবার আশা রাখি না, তেমনি আমরা অর্থের বিনিময়ে অতিথির নিকট খাবারও বিক্রি করি না।” -সে আমার নিকট থেকে কোন কিছু নিতে একেবারেই অস্বীকার করল।

তাদের এই মহানুভবতা দেখে আমি বুঝতে পারলাম তারা আমার চেয়েও অনেক বেশী মহৎ।”- [জওয়ামি অাল-হিকায়েত, পৃষ্ঠা ২১৪]

কনস্টান্টিনোপালের সম্রাট হাতেমের মহানুভবতার কথা শুনেছিলেন। তিনি তার মহত্ত্বের পরীক্ষা নিতে চাইলেন। এই উদ্দেশ্যে তিনি তার এক বিশ্বস্ত কর্মচারীকে হাতেমের কাছে পাঠালেন। ঐ কর্মচারী হাতেমের বাড়ীতে রাতে গিয়ে পৌঁছান। রাজকীয় দূতকে যেভাবে অভ্যার্থণা করা দরকার সেভাবেই অভ্যার্থণা শেষে রাতে তার অ্যাপায়ন ও রাত্রি যাপনের ব্যবস্থা করা হয়। পরদিন সকালে ঐ কর্মচারী হাতেমকে তার আগমনের উদ্দেশ্য জানিয়ে বলে যে, সম্রাট একটি বিশেষ ধরণের অশ্ব খুঁজছেন যার একটি তার অধিকারে রয়েছে।

আরবগণ দ্রুতগামী অশ্বকে তাদের সকল সম্পদের উপর মূল্যবান জ্ঞান করত এবং নিজের অধিকারে ঐ ধরণের একটি অশ্ব থাকাতে তারা বিশেষভাবে গর্ববোধ করত। সম্রাট আরবদের এই স্বভাব ও প্রকৃতি সম্পর্কে বিশেষভাবে অবহিত ছিলেন। আর তাই তিনি তার কর্মচারীকে সেই মূল্যবান এবং গর্বের বস্তুটি দাবী করতে শিখিয়ে দিয়েছিলেন।

হাতেম, কর্মচারীর কাছে সম্রাটের আকাংখার কথা জানতে পেরে ক্ষণকাল নীরব হয়ে রইলেন। তারপর দু:খ ভারাক্রান্ত কন্ঠে বললেন, “আপনি যদি গতকালই তার অনুরোধের বিষয়টি আমাকে জানাতেন, তবে তৎক্ষণাৎ আমি তার অনুরোধ রক্ষা করতে পারতাম। কিন্তু যে অশ্বটি তিনি চাইছেন তা এখন আর আমার অধিকারে নেই। আপনার হঠাৎ আগমণে আতিথেয়তার প্রয়োজনে উপযুক্ত কোন কিছু হাতের কাছে না পেয়ে আমি ঐ অশ্বটি জবেহর নির্দেশ দিয়েছিলাম এবং সেটি দিয়েই গতরাত্রে আপনার আহার্য প্রস্তুত করা হয়েছিল।” উল্লেখ্য, আরবগণ ঘোড়ার মাংসকে উপাদেয় খাদ্য হিসেবে বিবেচনা করত।

হাতেম তখনি কয়েকটি ভাল প্রজাতির দ্রুতগামী অশ্ব ক্রয় করে আনতে লোক পাঠালেন এবং রাজকর্মচারীকে সেগুলি তার প্রভুর জন্যে উপহার হিসেবে নিয়ে যাবার জন্যে বিনীত প্রার্থনা জানালেন। রাজকর্মচারী ফিরে গিয়ে সম্রাটকে সকল কথা জানালে তিনি স্বীকার করলেন-“মানুষের মধ্যে সর্বাধিক মহৎ উপাধিটি সত্যিই তার প্রাপ্য।”. -[ফোজুনি, পৃ. ২২৯; বোস্তান, পৃ.৮৯-৯০]

হাতেমের সু-খ্যাতি শাসকগণের অনেককে পীড়া দিত। বিশেষত: ইয়েমেনের শাসনকর্তা নুমান তার সুনামে প্রচন্ড রকমের ঈর্ষা বোধ করতেন। তিনি অবশেষে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হলেন যে, মহানুভবতায় হাতেমকে অতিক্রম করার চাইতে তাকে সরিয়ে দেয়াই যথেষ্ট সহজতর এবং উত্তম। তিনি তার এক মোসায়েবকে প্রতিদ্বন্দ্বী হাতেমের হাত থেকে নিস্কৃতি পেতে নিয়োগ দিলেন। এই মোসায়েব দ্রুতই হাতেমের বাসস্থানে উপনীত হল।

তারপর যখন দূর থেকে তাঈ বংশের তাঁবুগুলো সে দেখল, তখন তার স্মরণে এল যে, সে কখনও হাতেমকে দেখেনি। সুতরাং সে সিদ্ধান্ত নিল- প্রথমে হাতেমের তথ্য-উপাত্ত জোগাড় করতে হবে, তারপর অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা। কারও সন্দেহের উদ্রেক না করে সে ধীরে ধীরে তাঁবুগুলোর দিকে অগ্রসর হতে লাগল।

একমনে চিন্তা করতে করতে নোমানের মোসায়েব যখন এগিয়ে যাচ্ছিল, তখন এক ব্যক্তি এগিয়ে এসে তাকে তার তাঁবুতে আমন্ত্রণ জানাল। সে এই আমন্ত্রণ গ্রহণ করল এবং তার বিনীত অভ্যার্থণায় মুগ্ধ হয়ে গেল। তারপর এক উপাদেয় ভোজন শেষে সে প্রস্থানের অনুমতি চাইল। কিন্তু আরব তাকে আরও কিছু সময় তাদের সাথে আনন্দ উপভোগের জন্যে অনুরোধ করল।

কিন্তু ঐ মোসায়েব তাকে বলল, “জনাব, আপনার উদারতা, সৌজন্যবোধ ও শিষ্টাচারে আমি মুগ্ধ। কিন্তু বিশেষ এক জরুরী কাজে আমাকে এখন উঠতে হবে।”
“যদি সম্ভব হয়” -আরব বলল, “আপনার বিষয়টি আমাকে বলুন। আপনি এখানে অপরিচিত, হয়ত: আমি আপনার কোন কাজে লাগতে পারব, একবার বলেই দেখুন না!”

কর্মচারী গৃহকর্তার প্রস্তাবটি গ্রহণ করল এবং একই সাথে সে নোমানের দেয়া কাজটির বিনিময়ে যে কমিশন বা আর্থিক সুবিধা লাভ করবে, তার অংশবিশেষও তাকে দেবার প্রস্তাব করল। “কিন্তু কিভাবে”- সে বলে চলল, “আমি আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করব, যখন আমি হাতেমকে কখনও দেখিইনি? আমার নিকট হাতেম সম্পর্কে তথ্য আনুন। নিশ্চয়ই আমার প্রতি আপনার করা অন্যান্য অনুগ্রহের সাথে এটিও যুক্ত হবে।”

“আমি আপনার নিকট প্রতিজ্ঞাবদ্ধ আমার সার্ভিস দেবার ব্যাপারে।”- আরব বলল। “নিশ্চয়ই আমি আমার কথার দাস। সুতরাং আঘাত করুন”- সে তার সিনা উন্মুক্ত করে বলল, “হাতেমের রক্ত বইয়ে যেতে দিন। আমার মৃত্যুর মধ্য দিয়ে আপনার প্রভুর ইচ্ছে পূরণ হোক। আর এর মাধ্যমে আপনি যে পুরস্কার পাবার আশা করছেন তা সংগ্রহ করে নিন। মুহুর্তগুলি মূল্যবান। রাজাজ্ঞা পালনে দ্বিধান্বিত হবেন না এবং যতদ্রুত সম্ভব দূরে চলে যান; রাতের অন্ধকার আমার আত্মীয় ও বন্ধুবর্গের প্রতিশোধ গ্রহণের হাত থেকে আপনাকে পালিয়ে যেতে সাহায্য করবে। যদি আগামী কাল আপনাকে এখানে পাওয়া যায়, তবে নিশ্চয়ই আপনার কার্য অসম্পূর্ণ রয়ে যাবে।”

ঐ কর্মচারীর কানে এসব কথাগুলো বজ্রপাতের ন্যায় শোনাল। অপরাধবোধ তাকে বিদ্ধ করতে লাগল। হাতেমের মহানুভবতায় নতজানু হয়ে সে চিৎকার করে বলল, “খোদা না করুন যে আমি আমার অপবিত্র হাত আপনার উপর রাখি! কোন কিছুই কখনও আমাকে এ ধরণের কাজে তাড়িত না করুক।” সে তাঁবু থেকে বেরিয়ে ইয়েমেনের পথ ধরল।

হাতেম তাঈ এর সমাধি।
নোমান তার মোসায়েবকে দূর থেকে দেখেই হাতেমের শির দাবী করলেন। তখন যা ঘটেছিল সে তার পুঙ্খানুপুঙ্খ বর্ণনা দিল। সবশুনে নোমান বিষ্ময়ে চিৎকার করে উঠলেন- “It is with justice, O Hatim! that the world reveres you as a kind of divinity. Men instigated by a sentiment of generosity may bestow their whole fortune; but to sacrifice life is are action above humanity!”- [ফোজুনি, পৃ. ২২৮; বোস্তান, পৃ. ৯০-৯১]

হাতেম তাঈ ঘাসানিয়া রাজকন্যা মাওইয়াকে বিবাহ করেছিলেন। এটি ছিল তার ২য় বিবাহ। মাওইয়ার পাণি প্রার্থীদের মধ্যে আরও ছিলেন দুবিয়ানের সেই বিখ্যাত কবি আন-নাবিগ ও নাবিত গোত্রের এক ব্যক্তি। এরা প্রত্যেকে তাদের নিজ নিজ কবিতা দিয়ে তাকে মুগ্ধ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু মাওইয়া মুগ্ধ হন হাতেমের কবিতায়, যার শুরু ছিল এমন- “ও মাওইয়া! সম্পদ তো সকালে আসে, সন্ধ্যায় চলে যায়।” যা হোক, মাওইয়া হাতেমকে বিবাহ করতে সম্মত হন, কিন্তু, শর্ত দেন তার ১মা স্ত্রীকে তালাক দেবার। অবশ্য হাতেম তা করতে অস্বীকার করেন এবং তাকে পরিস্কার জানিয়ে দেন- “আমি আমার কন্যার মাতাকে কখনও পরিত্যাগ করব না।” কিন্তু কিছুকাল পরে তার স্ত্রী মারা গেলে তিনি মাওইয়াকে বিবাহ করে নেন।

হাতেম তাঈ এর বাড়ীর ধ্বংসাবশেষ।
হাতেমের ১মা স্ত্রীর গর্ভে পুত্র আদি এবং এক কন্যা জন্মগ্রহণ করে। নবীজীর সময়ে তাঈ গোত্র প্রধান ছিলেন ঐ হাতেম পুত্র আদি। তার নেতৃত্বে ঐসময়ে তার গোত্রটি ইসলামের বিরুদ্ধাচারণে লিপ্ত হয়েছিল এবং তাদের পৌত্তলিক পুরোহিতরা ধর্মদ্রোহিতা জিইয়ে রাখছিল। এ কারণে হযরত আলীর নেতৃত্বে একটি ছোটদল প্রেরিত হয়েছিল তাদের আনুগত্য আদায় এবং তাদের দেব-মূর্ত্তিগুলোকে ধ্বংস করার কাজে।

এদিকে আদি, আলীর আগমনের কথা শুনে সিরিয়ায় পলায়ন করেন। কিন্তু, তার ভগ্নি কিছু সংখ্যক জ্ঞাতি প্রধানসহ আলী বাহিনীর হাতে বন্দী হন। আলী তাদেরকে স্ব-সম্মানে ও সহানুভূতির সঙ্গে মদিনায় নিয়ে আসেন। আলীর মহত্বের কারণে তাঈ গোত্রটি পরবর্তীতে তার অন্ধ সমর্থকে পরিণত হয়।-[কাহালা, পৃ. ৬৯১]

হাতেম দুহিতার নাম ছিল সুফানা। তাকে যখন নবীজীর সম্মুখে হাযির করা হল, তখন তিনি তাকে সম্বোধন করে বলেছিলেন, “হে আল্লার রসূল! আমার পিতা মৃত, আমার ভাই একমাত্র আত্মীয়। মুসলমানদের আগমনের সংবাদে সে পালিয়ে গেছে। আমি আমার মুক্তিপণ দিতে অক্ষম। সুতরাং আমার মুক্তির জন্যে আমি আপনার অনুগ্রহ কামনা করি। আমার পিতা একজন বিখ্যাত ব্যক্তি ছিলেন- তিনি তার গোত্রের যুবরাজ ছিলেন, তিনি মুক্তিপণ দিয়ে বহু বন্দীর মুক্তিদান করতেন, দুর্দশাগ্রস্থদের সান্তনা দিতেন, কারও আকাংখা কখনও অপূর্ণ রাখতেন না। আমি সেই হাতেম দুহিতা, সুফানা।”

নবীজী উত্তর দিয়েছিলেন, “তোমার পিতার একজন মুসলমানের গুণাবলী ছিল, যদি আমার পক্ষে এমন কোন ব্যাক্তির জন্যে প্রার্থনা করা সম্ভব হত, যিনি পৌত্তলিকতার মধ্যে জীবন অতিবাহিত করেছেন, তাহলে আমি তার আত্মার জন্যে প্রার্থনা করতাম।”

অতঃপর আশেপাশের মুসলমানদের সম্বোধন করে তিনি বলেছিলেন, “হাতেম-দুহিতা স্বাধীন, তার পিতা একজন দানশীল ও দয়ালু মানুষ ছিলেন, আল্লাহ দয়ালু লোকদের ভালবাসেন ও পুরস্কার দেন।”

সুফানাসহ তাঈ গোত্রের সকলকে প্রচুর উপঢৌকনসহ মুক্তি দেয়া হয়েছিল। সুফানা তার ভাইয়ের কাছে সিরিয়ায় গমন করেন এবং মুহম্মদের মহত্ত্বের কথা তাকে বর্ণনা করেন। কৃতজ্ঞতায় অভিভূত হয়ে আদি তাড়াতাড়ি মদিনায় এসে মুহম্মদের পদতলে আশ্রয় প্রার্থনা করেন। অত:পর ইসলাম গ্রহণ করে তিনি তার গোত্রের লোকজনদের মধ্যে ফিরে গিয়ে সকলকে পৌত্তলিকতা বর্জন করে ইসলাম গ্রহণে প্রলুব্ধ করেছিলেন।- সৈয়দ আমীর আলী, দি স্পিরিট অব ইসলাম।

৯বম হিজরী, ৬৩০ সনে আদি ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন। এসময় তিনি তার পিতৃ-সম্পত্তির উত্তরাধিকারত্ব এবং গোত্রের নেতৃত্ব ফিরে পান। তারপর খলিফা আবু বকরের সময় তিনি মুসলিম সেনাদলে যোগ দেন এবং খালিদ বিন ওয়ালিদের নেতৃত্বে ইরাক অভিযানে অংশগ্রহণ করেন। তিনি অত:পর হযরত আলীর পক্ষে উষ্ট্রের যুদ্ধ ও সিফফিনের যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।-[কাহালা, পৃ. ৬৯১] যতদূর জানা যায়, এই সিফফিনের যুদ্ধে আদি নিহত হয়েছিলেন।

দক্ষিণ এশিয়ায় হাতেম তাঈ এর নামে নানা উপকথা, “কিচ্ছা-ই-হাতেম” বেশ প্রচলিত। কল্পকাহিনীতে ভরপুর এই কিতাব কিচ্ছা-ই-হাতেম-এর শুরুতে হাতেমের পূর্ব-পুরুষদের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা শেষে তার মহত্ত্বের কথা তুলে ধরা হয়েছে। সাতটি অধ্যায়ের এই পুস্তকে হাতেমের ৭টি চরম উদ্দীপক এবং শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান বর্ণনা করা হয়েছে।

কাহিনীর শুরু পারস্যের খোরাসানের বুরজাখ সওদাগর কন্যা হুসনা বানুর জিজ্ঞাসিত সাতটি প্রশ্ন দিয়ে। বিপুল সম্পদ ও ঐশ্বর্য্যশালী ঐ সুন্দরী রমনী ঘোষণা করে যে, সে তাকেই বিবাহ করবে যে তার ৭টি প্রশ্নের উত্তর এনে দিতে পারবে। তার প্রশ্নগুলি ছিল এমন-

প্রশ্ন-১.    “What I saw once, I long for a second time”. -Where is that man? What has he seen? and Why does he long for the same a second time?
প্রশ্ন-২  “Do good, and cast it upon the waters”. -What means this motto? and Where lives the writer of it? 
প্রশ্ন-৩.   “Do no evil; if you do, such shall you meet with”. -Where that man lives? What he has done? and What evil has befallen him?
প্রশ্ন-৪  “He who speaks the truth is always tranquil”. –Who is this man? Wherein has he spoken the truth, and what degree of tranquility does he enjoy in consequence?

প্রশ্ন-৫ “Bring an account of the mountain of Nida”.
প্রশ্ন-৬.  “Produce a pearl of the size of a duck’s egg”.
প্রশ্ন-৭.   “Bring an account of the bath of Bad­gard”.

কিচ্ছা-ই-হাতেম এর পান্ডুলিপি।
মুনীর শামী নাম্নী পারস্যের খারজিমের (বা সিরিয়ার) এক শাহজাদা হুসনা বানুর প্রেমে পড়ে যান। কিন্তু শর্ত শোনার পর, কি করতে হবে, কোথায় যেতে হবে বুঝতে না পেরে মরু পথে উদ্ভ্রান্তের মত ঘুরে বেড়াতে লাগলেন। দৈবক্রমে ইয়েমেনের মরুপ্রান্তে তার সাথে দেখা হয় হাতেমের। সে তার কাহিনী শোনায় তাকে। সবশুনে হাতেমের হৃদয় ব্যাথিত হয়। সে তাকে তার সাতটি প্রশ্নের উত্তর এনে দেবার প্রতিশ্রুতি দেয়। এভাবে শুরু হয় হাতেমের একের পর এক অভিযান। পুরোপুরি কল্পকাহিনীতে ভরপুর হলেও এসব অভিযানের কাহিনীগুলো সুখপাঠ্য, উপভোগ্য এবং নৈতিক উপদেশমূলক।

আধুনিক কালের মুসলিম লেখকদের অনেকেই হাতেমের মধ্যে মুহম্মদের গুণাবলী খুঁজে পান। কিছু ক্লাসিক্যাল পার্স্যিয়ান উৎস আবার তার মহত্ত্বের কারণে পরকালে তার মুক্তির নিশ্চয়তাও দিয়ে ফেলেছে যদিও সে ছিল অবিশ্বাসী। যেমন, সিয়াসৎ নামায় বলা হয়েছে- "খোদা হাতেমের শরীরের জন্য দোযখের আগুন নিষিদ্ধ করেছেন তার মহানুভবতা ও আতিথেয়তার কারণে।"-[নিজাম আল-মুলক, পৃ. ১৭২]

আবার বহেরা অনুসারে, "নবীজী মেরাজে গিয়ে যখন দোযখ পরিদর্শন করছিলেন, তখন তিনি দোযখের মাঝখানে দুটি বেহেস্তী বাগান দেখতে পান। তিনি এর কারণ জানতে চাইলে তাকে বলা হয়, বাগান দু’টির একটি পার্স্যিয়ান ন্যায়বান সম্রাট অনুসিরাভানের ও অপরটি হাতেমের যদিও তারা দু’জন পৌত্তলিক ও অবিশ্বাসী হবার কারণে দোযখী, তথাপি খোদা তাদের ন্যায়পরায়ণতা ও মহানুভবতার কারণে প্রতিশ্রুত তাদেরকে দোযখের শাস্তি না দেবার। আর তাই আপোষরফায় তাদেরকে দেয়া হয়েছে বেহেস্তী বাসস্থান দোযখের মাঝে।" -[ফোজুনি, পৃ. ২২৭]

অবশ্য কোরাণিক পরিভাষায় এসব কথা ধোপে টেকে না। আর এর সমর্থনে এ হাদিসও রয়েছে- "হাতেম পুত্র আদি একবার নবীজীকে জিজ্ঞেস করেছিলেন যে, তার পিতা পৌত্তলিকতার মধ্যে জীবন-যাপন করাতে তার মহানুভবতা পরকালে তার মুক্তির কাজে সাহায্য করবে কিনা। নবীজী প্রত্যুত্তোরে বলেছিলেন যে তা কোনই কাজে আসবে না, যদি না সে মৃত্যুর আগে অনুশোচনা ও ক্ষমা প্রার্থনা না করে।"- [সিরাজী, পৃ. ২৪; মেবুদি-৪, পৃ.৪১-৪২]

লোক কাহিনী হিসেবে হাতেম তাঈ এর পরিচিতি পারস্যে ব্যাপক ছড়িয়েছিল। প্রসিদ্ধ পার্স্যিয়ান কবি শেখ সাদি তার বোস্তান এবং গুলিস্তানে তার কথা উল্লেখ করেছেন। বোস্তানে সাদি বর্ণিত হাতেমের কাহিনী উপরে উল্লেখ করা হয়েছে এখন গুলিস্তানে হাতেম সম্পর্কে তার করা মন্তব্য দিয়েই আমরা আর্টিকেলের সমাপ্তি টানছি-

“Hatim Taï no longer exists but his exalted name will remain famous for virtue to eternity. Distribute the tithe of your wealth in alms; for when the husbandman lops off the exuberant branches from the vine, it produces an increase of grapes.”

সমাপ্ত।
সংশোধিত নয়।

উৎস:
আরব্য রজনী,
বোস্তান, শেখ সাদী,
গুলিস্তান, শেখ সাদী,
হাতেম তাঈ এর কিচ্ছা, হায়দার বক্স,
বহেরা, মাহমুদ ফোজুনি আস্তারাবাদী,
কিতাব আল-মারিফ, আবুল ফারাজ ইস্পাহানী,
ইবনে আবদ রাবিয়াহ, আল-ইকদ আল-ফরিদ,
সিরাত রসূল আল্লাহ, রফি আলদীন ইসহাক বিন হামদানী,
কাসফ আল-আসরার, আহমদ বিন মুহাম্মাদ মেবুদি,
ফরিদ আল-দীন আত্তার, মুসিবতনামা,
নিজাম আল-মুলক, সিয়ার আল-মলুক,
মসনবী, জালাল আল-দীন রুমী,
এনসাইক্লোপিডিয়া ইরানীকা,