pytheya.blogspot.com Webutation

২৬ মার্চ, ২০১৬

Wahshi: এক নরোত্তম ও এক নরাধমের ঘাতক উপাখ্যান।

ওয়াইশি ইবনে হার্ব (আক্ষরিক অর্থে যুদ্ধের সন্তান) ছিল জুবায়ের ইবনে মুতিমের ইথিওপিও দাস।সে মূলত: নবীজীর চাচা, হামজা ইবনে আব্দুল মুত্তালিব এবং ভন্ড নবী মুসাইলিমা ইবনে সুমামা বিন কবির বিন হাবিবের হত্যাকারী হিসেবে সুপরিচিত। 

নবীজী যখন ইসলাম প্রচার শুরু করেন, তখন সমাজের অবহেলিত ও নির্য়াতিতরাই কেবল তা গ্রহণ করছিল। এভাবে ওমরের বাঁদী রানীন যখন তা গ্রহণ করল, তখন কুরাইশগণ বলতে লাগল, “ইসলাম যদি ভাল কোন ধর্ম হত, তবে রানীনের মত বাঁদী আমাদেরকে ফেলে এগিয়ে যেতে পারত না।" 

যা হোক, ইসলামে মানুষের মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই। সুতরাং সকলের সাথে জুবায়েরের দাস ওয়াইশির কাছেও ইসলামের দাওয়াত পৌঁছিল। এতে ওয়াইশি জানিয়েছিল: “ও মুহম্মদ! কি করে তুমি আমাকে ইসলামের দিকে আহবান কর, যখন তুমি বল যে, হত্যাকারী, পৌত্তলিক ও ব্যাভিচারী শেষবিচারের দিনে দোযখী সাব্যস্ত হবে, তারা দোযখে যাবে এবং সেখানে চিরস্খায়ীভাবে বসবাস করবে? আমি সবগুলো পাপই করেছি। এতদসত্ত্বেও আমার পরিত্রাণের অন্যকোন উপায় আছে কি?” 

এতে কোরআনের এই আয়াত নাযিল হয়কিন্তু যারা তওবা করে বিশ্বাস স্থাপন করে এবং সৎকর্ম করে, আল্লাহ তাদের গোনাহকে পুন্য দ্বারা পরিবর্তত করে এবং দেবেন। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।-(২৫:৭০) 

ওয়াইশি এর উত্তরে বলেছিল, “ও, মুহম্মদ! ”যদি সে তওবা করে, বিশ্বাসী হয় ও সৎকর্ম করে...” এ শর্তগুলো আমার জন্যে খুবই কঠিন।”

তখন খোদা এ আয়াত নাযিল করেন: “নিশ্চয় আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেন না, যে তাঁর সাথে কাউকে শরীক করে। এছাড়া যাকে ইচ্ছা, ক্ষমা করেন। যে আল্লাহর সাথে শরীক করে সে সুদূর ভ্রান্তিতে পতিত হয়।” -(৪: ১১৬)

ওয়াইশি এরপর বলেছিল, “ও, মুহম্মদ! এ সম্পূর্ণ আল্লার ইচ্ছেধীন। আমি নিশ্চিত ন আমি ক্ষমা পাব কি পাব না। আর কোন পথ আছে কি-না বল?” 

তখন এ আয়াত নাযিল হয়: “বল, হে আমার বান্দাগণ যারা নিজেদের উপর যুলুম করেছ তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয় আল্লাহ সমস্ত গোনাহ মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।” -(৩৯:৫৩) 

এ সময় সাহাবীরা বলেছিল, “ওয়া্ইশি যা জানতে চেয়েছে আমাদের মনেও এ প্রশ্ন উদয় হয়েছিল।” 

তখন নবীজী বলেন, “এ তো সকল মুসলমানের জন্যে সুখবর।” -দি ইসলামিক বুলেটিন, খন্ড-২২, নম্বর ২৭, পৃষ্ঠা-২৯।

আর ওয়াইশি এ শুনে বলেছিল, “এ তো ভাল,”. কিন্তু সে ঐ সময় ইসলাম গ্রহণ করেনি। সম্ভবত: তার মনিবের ভয়ে, কেননা কুরাইশগণ ঘোষণা দিযেছিল, "কেউ তার মনিবের অনুমতি ছাড়া ইসলাম গ্রহণ করতে পারবে না।" অথবা সে ভীত হয়েছিল নব্য মুসলিমদের উপর কুরাইশদের নৈমিত্তিক অত্যাচার প্রত্যক্ষ করে।

বদর যুদ্ধে অনেক কুরাইশ নেতা নিহত হয়েছিল, যাদের মধ্যে ছিল তুয়াইমা ইবনে আদি আল খায়ের এবং ওৎবা ইবনে আবি রাবিয়া। তারপর ওহুদ যুদ্ধের সময়, আবু সূফিয়ানের স্ত্রী, ওৎবার কন্যা হিন্দ ওয়াইশিকে এমন এক প্রস্তাব দিল যে, যদি সে মুহম্মদ ইবনে আবদ আল্লা, আলি ইবনে আবু তালিব বা হামজা ইবনে আবদ আল-মুত্তালিব- এই তিনজনের কাউকে হত্যা করতে পারে, যাতে সে বদর যুদ্ধে নিহত তার পিতার হত্যার প্রতিশোধ নিতে সমর্থ হয়, তবে তার ঐ কাজে সফলতার পুরস্কার স্বরূপ সে তার মুক্তির ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে বলে তার কাছে প্রতিজ্ঞাত হয়


Hamza killed Tu'ayma ibn 'Adi bin al-Khaiyar at the battle of Badr, who was the paternal uncle of Jubayr ibn Mut'im. So, when the Quraish preparing themselves for a battle again for revenge and to defeat Muslim, his master Jubayr told him, ‘if you kill Hamza, the uncle of Muhammad, stealthily in revenge for my uncle, you shall be manumitted.’ So it was a double chance for Wahshi to free himself from the slave chain that coupling his neck a long time ago.

When the people set out (for the battle) in the year of ‘Ainain. [‘Ainain is a mountain near the mountain of Uhud, and between it and Uhud there is a valley where the battle take places]. I went out with the people to participate in the battle. 

On the Day of Uhud (625), when the army aligned for the fight, Wahshi set out seeking his prey. It was impossible for him to approach Muhammad, because his companions were nearer to him, guarding. He thought that Ali is extraordinarily vigilant in the battlefield, while, Hamza is furious at fighting, he does not pay any attention to any other side and it is possible that he may able to make him fall by some trick or by taking an opportunity of his unawares.

While he was thinking, he notice Siba’ came out from the Quraish side and said, ‘Is there any (Muslim) to accept my challenge to a duel?’ 
And Hamza ibn 'abd al-Muttalib heard him, came out, roaring, ‘O Siba’. O Ibn Um Anmar, the one who circumcises other ladies! Do you challenge Allah and His Apostle?’ 

Siba ibn abd al-Uzza going closer towards him. Hamza observed him carefully, he said: ‘Come on! O son of the clitoris-cutter,’. He then struck him a blow so quickly that it appeared to have missed his head. But that not happened, the blow had taken his head off.

Wahshi hiding himself under a rock keeping his eyes to Hamza, and when he came near to him, he came out of ambush, from a specific distance after moving his spear in a particular manner he balanced his weapon and threw it. Like other African, Wahshi was too skilled at spearing, it never missed the target. 

Wahshi, looked at his spear, it still flying towards the target, then suddenly hit Hamza into his umbilicus and came out through his buttocks. He attempted moving towards Wahshi to attack him but severe pain prevented him from doing so. He remained in the same condition till his soul departed from his body. Then he came to him, pulled out his spear, returned to the encampment place and waited for his freedom. He stayed there and did not go out, for Hamza was the only one he sought, sought to kill him to free himself from slavery. He didn't involved himself in the battle.

When the battle field fully under controlled by the Quraish, Hind binte Othba find the body of Hamza, who killed his father Othba ibn Rabia in the battle of Badr. She was furious, open his chest with knife and bring out his liver, then she chewed it sitting on his breast.

When the battle was over and all the people returned to Mecca. Wahshi, too returned with them. He was happy, starting living there a new life as a free man.

Rasulullah heard the news of the death of his uncle. It was beyond imagine how devastating all that happened to him. This was his uncle whom he loved much. He asked if anyone had seen the place where his uncle had been killed. One of the sahabah stood out and said that he did, they went there together.

When he saw him, he cried. When he saw that his stomach was open and his insides were pulled out. The sahabah who had taken him there said that he was not in the state he had seen him when he was killed, it happened later on. This may be the action of Hind bint Utbah, wife of Abu Sufyan, who wanted to eat the liver of Hamza. 

On the eve of the conquest of Mecca, Wahshi declared 'war criminals' for killing Hamza by the Prophet. So he fled from Mecca. Wahshi said, "After the Battle of Uhud, I continued to live in Mecca for quite a long time until conquered by Muslim. I then ran away to Ta'if."

Wahshi lived a few years in Ta'if among the Thaqeef. In 9 Hijri, when the people of Taif preparing to sent their deligation to Allah's Apostle, to accept Islam. This was a critical situation for Wahshi, he didn’t know what to do. If Taif was going to accept Islam, where could he go.

At last he decided to go to Syria or Yemen or some other country. That was really a state of indecision and anxiety for him, then someone told him, ‘come on with us, I swear he’ll not kill anyone who has adopted his religion and testified to the truth’.” News of the forbearance was all over, his forgiveness and his mercy was known.

He was told that the Prophet did not harm the messengers; So he too went out with them as a member of the delegation to the prophet at Madina. Then when the Thaqeef submitted to the Prophet, Wahshi too embraced Islam and went personally to swear allegiance to the Prophet.

Wahshi said, "I heard that however grave the crime of a person might be, God forgave him. I, therefore, reached him with Shahadatayn on my lips".

The Prophet saw him.  He had not seen him for many years, and was not certain if he was the man, "Are you the same Wahshi, the Ethiopian?" 
He replied in the affirmative. Thereupon he signed me to sit down and then asked me, "How did you kill Hamza ibn Abd al-Muttalib?" 

Wahshi recounted the whole story from beginning to end. But he only replied, 'What happened is what you have been told of.' he continued, 'and what is not told you that I killed him only to free myself from the bond of my slavery, I didn't take part in the battle."   

There was a pin drop silent all around. On the face of the Prophet was a look of deep sorrow as he moved, said, "I should not see your face until you are resurrected, because the heart-rending calamity fell upon my uncle at your hands".

Rasulullah did not want to see the face of Wahshi again as it would bring back memories of his uncle. Something inside warned him to remain in Medina, where the memory of Hamza was deeply cherished, might be unhealthy for him. He left at once.

For the next two years he lived in various settlements around Taif, seeking obscurity and avoiding travellers. He was troubled by his conscience and feared for his life. It was a wretched existence. But he remained loyal to his new faith and elected to fight for Islam against the unbelievers. Then he came to the apostasy. 

When Allah’s Messenger died, and Musaylimah claiming to be a prophet, Wahshi decided to participate in the battle against him, so that he may kill him, and make some amends in retribution the killing of Hamza. So he went out with the people to fight against Musaylimah and his followers and then God fulfilled his wish, gave him an opportunity to re-compensate his deed's.

Wahshi came to the apostasy under the command of Khalid bin Walid. He was loyal to his new faith and elected to fight for Islam against the unbelievers.Then it was against Musaylimah, the battle at Aqraba. 

When the 3rd part of the battle inside the Garden starts, Wahshi searching all over for Musaylimah. Then his eagle eye caught him in a distance protected by his men. The range was not too long for him. Quickly he poised and aimed his spear to the target. It was the same spear that pierce Hamza before.

Musaylimah standing near a gap in a wall with a sword in his right hand. He looked like an ash-colored camel and his hair was dishevelled. Surely it was Musaylimah and Wahshi threw his spear at him.

An Ansari named Abu Dojona trying to reach Musaylimah opposite to him, but before he getting him, the spear that thrown by Wahshi stalked him to the ground helplessly. At that moment Abu Dojona get him and struck him on the head and separated it from his body. But he was also beheaded by a sword from behind at the same time. Abdullah bin 'Umar said, ‘A slave girl on the roof of a house said: "Alas! The chief of the believers has been killed by a black slave.” 

ওয়াইশি পরবর্তীতে খালিদ বিন ওয়ালিদের নেতৃত্বে সিরিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। অত:পর যখন সেটি বিজিত হয়ে মুসলিম সাম্রাজ্যের অন্তর্ভূক্ত হয়ে যায়, তখন সে এমেসার হিমসে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকে। আর সেখানে বসবাস কালে সে মাত্রাতিরিক্ত মদ্যপানে আসক্ত হয়ে পড়ে। ফলে শরিয়তী আইনের শাস্তি তাকে পেতে হয়। খলিফা ওমর তাকে ৮০টি দোররা মারার নির্দেশ দেন। সে ছিল প্রথম মুসলিম যে সিরিয়ায় এ ধরণের অপরাধের জন্য শাস্তির আওতায় আসে। তবে শাস্তি পাবার পরেও ওয়াইশি মদ্যপান পরিত্যাগ করতে পারেনি। এতে ওমর হতাশ হয়ে মন্তব্য করেছিলেন, "Perhaps the curse of Allah rests on the Savage for the blood of Hamza."

ওয়াইশির শেষ জীবন ঐ এমেসাতেই কাটে। তবে শেষের দিকে সে বেশ বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিল। অনেকে তাকে এক নজর দেখার জন্যে তার বাড়ীতে ভীড় করত। তবে পাঁড় মাতাল হলেও সে আগতদের অনুরোধে তাদেরকে হামজা ও মুসাইলিমাকে হত্যার বিস্তারিত ঘটনা শোনাত। আর তার আসনের পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা সেই ঐতিহাসিক বর্শাটা দেখিয়ে উপসংহার টানত- "With this spear, in my days of unbelief I killed Hamza, a man among the best and in my days of belief I killed Musaylimah, the man among the worst!" তারপর সে বর্শাটা হাতে তুলে নিয়ে কোলের উপর রাখত, আর সেটির গায়ে গভীর মমতায় হাত বুলাতে বুলাতেে আনমনা হয়ে যেত।

একই কাহিনীর পুনরাবৃত্তি.......

জাফর বিন আমর বিন ওবায়দুল্লা ও আমর বিন উমায়া একসাথে ঘুরতে বের হয়েছিল। তারপর যখন তারা হিমে [সিরিয়ার এক শহর] পৌঁছিল, ওবায়দুল্লা
আমরকে বলল, “ওয়াইশিকে দেখতে যাবা যাতে করে আমরা তার কাছ থেকে হামজা হত্যার কাহিনীটা শুনতে পারি?”
সে বলল, “তা বেশ, চল।”

Wahshi used to live in Hims. So, they enquired about him and somebody told them, “He is that in the shade of his palace, as if he were a full water skin.” So they went up and when they were at a short distance, they saw him. They greeted him and he also greeted them in return. ‘Ubaidullah hide himself wearing his turban, so that Wahshi could not see except his eyes and feet. Then he said, “O Wahshi! Do you know me?” 

Wahshi looked at him and then said, “No, by Allah! But I know that `Adi bin Al-Khiyar married a woman called Um Qital, the daughter of Abu al-As, and she delivered a boy for him at Mecca, and I looked for a wet nurse for that child. I carried that child along with his mother and then I handed him over to her, and your feet resemble that child’s feet.”

তখন
ওবায়দুল্লা তার মুখ অনাবৃত্ত করে বলল, “তুমি কি তোমার ঐ হামজা হত্যা কাহিনীটা আমাদেরকে একটু শোনাবে?” 
ওয়াইশি এক দীর্ঘশ্বাস ফেলল, তারপর ক্ষণকাল নীরবতার পর সে বলল, নিশ্চয়।” সে কাহিনী বর্ণনা করে চলে।.....
এমনিভাবেই দিন গুজরান করে চলে ওয়াইশি। আর অপেক্ষায় থাকে ডাক আসার..............। 

সমাপ্ত।
সংশোধিত নয়।

Source:
al-Qur'an
Sahih al-Bukhari 
Mubarakpuri, The Sealed Nectar, page 261

২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬

Ridda: রহমান আল-ইয়ামামার কাহিনী।

মুসাইলিমার পুরো নাম মুহম্মদ হাসান মুসাইলিমা বিন সুমামা বিন কবির বিন হাবিব। তার জন্ম বনু হানিফা গোত্রে। এই গোত্র বনু বকর বিন ওয়াইল (পরবর্তীতে রাবিয়া) একটি খৃষ্টান শাখা এবং নজদে বসবাসকারী আরব গোত্রগুলোর মধ্যে সর্ববৃহৎ গোত্র। এরা মূলত: উত্তর আরব থেকে গিয়ে সেখানে বসতি স্থাপন করে। আর ৫০৩ সিইতে মধ্য আরবের কিন্দা সাম্রাজ্যে নেতৃত্বদানকারী গোত্র হিসেবে অবির্ভূত হয়।বনু বকরেরা বাস করত অাল-ইয়ামামায় এবং তারা আল হিজরকে (বর্তমান আর-রিয়াদ) তাদের রাজধানী করেছিল।-(যোসেফ চিলোদ (প্যারিস, ১৯৬৪) পৃ.১৪)

ইয়ামামার শাসক ও বনু হানিফা গোত্রের প্রাক্তন প্রধান হাওদা বিন আলীর মৃত্যুর (৬৩০ সিই) পর [৬২৮ সিইর জুনে, কুরাইশদের সাথে হুদা্ইবিয়াতে সন্ধি চুক্তির কিছু পূর্বে, নবী মুহম্মদ হাওদাকে ইসলাম গ্রহণের দাওয়াত দিয়ে এক পত্র দিয়েছিলেন।আর ইসলাম গ্রহণের শর্ত হিসেবে হাওদা নবীজীর কাছে ক্ষমতায় তার সহ-ভাগীদার হওয়ার আকাংখা জানিয়ে তার স্বীকৃতি চান এবং তার নব্যূয়তের উত্তরাধিকারী হওয়ার প্রস্তাব রাখেন, যা নবীজী কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত হয়েছিল], মুসাইলিমা সাফল্যজনকভাবে নিজেকে তার গোত্রের নেতা হিসেবে উপস্থাপন করতে সমর্থ হন এবং ইয়ামামার পূর্বাঞ্চলের এক বৃহৎ এলাকা নিজ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন যা মূলত: আবাদি জমি এবং প্রচুর ফসল উৎপন্ন করত। পরবর্তীতে তিনি ইয়ামামাতে একটি স্যাক্রেড হারাম গড়ে তোলেন।

শেবার রানী বিলকিস
ইয়ামামার দক্ষিণে রয়েছে সেই ঐতিহাসিক নগরী সাবা, যার রানী বিলকিস জেরুজালেমে নবী শলোমনের কাছে গিয়েছিলেন। এ নগরী নবী মূসার আমল থেকেই যাদু ও মায়া বিদ্যা চর্চার কেন্দ্রভূমি ছিল। সেখানে বসবাসকারীগণ ছিল ম্যাজিবাদী, অগ্নি উপাসক, যারা অালোক এবং অন্ধকারকে তাদের ধর্মনীতির অন্তর্ভূক্ত করেছিল। এতে কালক্রমে অন্ধকারের শক্তি তথা জ্বিণ তাদের ধর্মে উপাসনার অংশ হয়ে যায়।ফলে আরাধনাকারীরা আবির্ভূত হয় ভাববাদী তথা গণক ও সূতসায়ার রূপে। অজ্ঞ মানুষ তাদের নানান ইচ্ছে পূরণে এদের স্মরণাপন্ন হত। যেমন-

‘আর শলোমনের রাজত্বে শয়তানেরা যা আওড়াত তারা (সাবাবাসীরা) তা মেনে চলত। শলোমন কূফর করেনি, বরং শয়তানই কূফর করেছিল। তারা মানুষকে শিক্ষা দিত (সেই) জাদু যা বাবিল শহরের দুই ফেরেস্তা হারুত ও মারুতের উপর অবতীর্ণ হয়েছিল।- [২:১০১]

অর্থাৎ সাবাতে জাদুর আমদানী ও সেগুলো জাদুকর ও সূতসায়ারদেরকে শিক্ষা দিত শয়তান জ্বিণেরা। আর তারা ঐসব জাদু আমদানী করত, যা অবতীর্ণ হয়েছিল বাবিলে বসবাসকারী পতিত ফেরেস্তাদ্বয় হারুত ও মারূতের উপর। অর্থাৎ ঐ ফেরেস্তাদ্বয়ের কারণে সাবা নগরীতে যাদু, মায়া ও ডাকিনী বিদ্যার প্রচলন ও ব্যবহার বহূলরূপে বৃদ্ধি পায়।

আর সূতসায়ারদের ভাববানীও ছিল তেমনি এক বাণী যা তারা পেত জ্বিণদের কাছ থেকে। ঐসব বাণী রচিত হত বিশেষ ধাঁচে, বিশেষ ছন্দে, যার কিছু ফলত, কিছু কখনও ফলত না। আর বাণী না ফললে দোষারোপ করা হত বাণী প্রার্থীকে, তার রীতিপালনের ত্রুটিকে। তথাপি সমাজে তাদের সম্মান ও কদরে বিশেষ কোন ঘাটতি ছিল না।

অভিবাসীরূপে হিজাজে আগতরা বসবাস গড়ে তুললে ঐসব গণক, জাদুকর, ওঝা ও সূতসায়ারদের সংস্পর্শে আসে। অত:পর তারা তাদের সামাজিক অবস্থান ও প্রতিপত্তিতে আকৃষ্ট হয়ে ঐসব বিদ্যার চর্চা ও আরাধনা শুরু করে। হিজাজে এ ধারাই চলছিল। কিন্তু হঠাৎ করে বনি কুরাইশ গোত্রে নবী আবির্ভূত হলে তারা সেদিকে দৃষ্টি দিল। আর নবীর প্রতি অনুসারীদের ভক্তি ও শ্রদ্ধা অবলোকন করে নিজেরাও নবী হয়ে গৌরাবান্বিত হতে চাইল। অন্যদিকে এমনিতেই হিজাজে বসবাসকারী ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জাতি গোষ্ঠীর গোত্রগত কৌলিণ্য ও সম্মানকে বিশেষ মর্যাদায় দেখা হত। আর সূচতুর এসব সূতসায়ার বা জাদুবিদ্যায় পারদর্শীরা সেটিকেই মোক্ষম অস্ত্র হিসেবে কাজে লাগাল। ফলে নবী মুহম্মদের মৃত্যুর কাছাকাছি সময়কালে, তারা আরবে প্রচলিত রীতি অনুযায়ী ক্ষমতার লড়াই শুরু হবে এবং তার ফাঁকে তারা নিজেদের আসন পাঁকা করে নিতে পারবে এমনটা নিশ্চিত হয়েই তারা নব্যূয়ত প্রাপ্তির ঘোষণা দেয়। এতে প্রায় প্রতিটি গোত্র থেকেই একের পর এক তথাকথিত নবীর আগমন ঘটতে থাকে।

ইবনে কাছির তার সিরাত গ্রন্থে উল্লেখ করেন যে, মুসাইলিমা জাদু প্রদর্শনীতে পারদর্শী ছিলেন। তিনি তার জাদু দিয়ে সমবেত জনতাকে বিষ্ময়াভূত করে দিতেন। আর তিনি তার এ সব দক্ষতাকে কাজে লাগাতেন কেবল মানুষকে নিজের বলয়ে ধরে রাখতে। তাছাড়া এমনিতেই তিনি পূন্যবান ব্যক্তি ও নবীগণের অনুকরণে পোষাক পরিধান করতেন।প্রকৃতপক্ষে তিনি থাকতেন ছদ্মবেশে মুখ ঢেকে। ফলে মানুষ সহজেই প্ররোচিত হত বিশ্বাস করতে যে, তিনি জাদুকর বা সূতসায়ার নন, বরং তার ক্ষমতা ঐশ্বরিক দান।

মুসাইলিমার উচ্চমানের জাদু তার গোত্রের অজ্ঞ লোকদের কাছে অলৌকিক বলে বিবেচিত হয়। সিরা গ্রন্থগুলোতে তার এসব জাদুর অনেক বিবরণ দেখতে পাওয়া যায়। বলা হযে থাকে, তিনি একটা আস্ত ডিম বোতলে ভরে ফেলতে পারতেন; একটা পাখির সব পালক ছাড়িয়ে ফেলে তা আবার লাগিয়ে দিতে পারতেন যাতে সে আবার উড়তে পারে।তবে তাবারী আরো এক ভিন্ন তথ্য দিয়েছেন, তিনি উল্লেখ করেছেন যে, জাদুকর হওয়ায় তার দোয়া ফলত না বরং তা বিপর্যয় ডেকে আনত।যেমন-

বনু হানিফার এক নারী মুসাইলিমার কাছে এসে বলল: "আমাদের খেজুর বাগানগুলো শুকিয়ে যাচ্ছে, কূপেও পানি নেই, সুতরাং কূপের পানি ও আমাদের ফসলের জন্য খোদাকে ডাকেন যেমন মুহম্মদ করেছিলেন হাজমান গোত্রের জন্য।" মুসাইলিমা খোদাকে কিভাবে ডাকতে হয় তা জানতেন না, সুতরাং তিনি তার সাগরেদকে জিজ্ঞেস করলেন, "ও নাহার, সে কি বলল?"

আর সে (নাহার) বলল, "হাজমানের লোকেরা মুহম্মদের কাছে গিয়ে পানির অভাবের কথা বলে এবং তাদের শুস্ক কূয়ো ও খেজুর বাগানের... সুতরাং তিনি তাদের জন্য দোয়া করেন।-(তাবারী, পৃষ্ঠা ১৯৩৪) অত:পর তার দোয়ার ফলাফল বিপর্যয় ডেকে আনে: কূপ আরো শুস্ক হল, তার স্পর্শ্বে খেজুর গাছ মরে গেল, মাঠের ফসলাদিও শুকিয়ে গেল।

তবে সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল, মুসাইলিমার প্রায় সকল অলৌকিক কাহিনীর মূল বর্ণনাকারী একক ব্যক্তি- যে ছিল ইয়ামামার উত্তরাঞ্চল নিয়ন্ত্রণকারী হানিফ গোত্রের আরেক নেতা, সুমামা বিন উসালের একজন সাগরেদ, নাম- আসাল আল-হানিফ। -(তাবারী, পৃষ্ঠা ১৯৩১-৩৫)

৯বম হিজরীর শেষদিকে নবীজী শাসনকর্তাগণ ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গকে ইসলাম গ্রহণের আমন্ত্রণ জানিয়ে চারিদিকে দূত প্রেরণ করেন। এমনিভাবে মুসাইলিমার কাছেও দূত পৌঁছেছিল। এতে বনু হানাফি গোত্রের একদল বীর যোদ্ধার সাথে তিনি মদিনায় আগমন করেন। এ প্রতিনিধিদল মদিনায় পৌঁছে নবীজীর সঙ্গে সাক্ষাত করেন এবং তার কাছে প্রস্তাব রাখেন মুসাইলিমাকে নবী হিসেবে স্বীকৃতি দেবার ও আরবের উপর তার সাথে ক্ষমতা ভাগাভাগি করে নেবার। মুসাইলিমার এমন অযৌক্তিক দাবীর কথা শুনে নবীজী তার হতে ধরা শুকনো একটা খেজুর শাখার প্রতি ইঙ্গিত করে এমন কি তার একটি আঁশ পর্য়ন্ত তাকে দিতে অস্বীকার করেন।

সুতরাং প্রতিনিধিগণ ফিরে গেল এবং অবস্থান করল মদিনার কাইস্যা কাননে, যা ছিল আল হারিছের অবকাশ কালীন গৃহ। এই আল হারিছ ছিল একজন আনসার এবং মদিনার ইহুদি বনু নাজ্জারের সম্ভান্ত বংশোদ্ভূত।মুসাইলিমা আল-হারিছের কন্যাকে বিবাহ করেছিলেন। আর তিনি কাইস্যা বিনতে আল-হারিছের ২য় স্বামী  ছিলেন।

পরদিন সকালে, ডেলিগেশন পুন:রায় নবীজীর সঙ্গে সাক্ষাতের প্রস্তুতি নেয়, মুসাইলিমা আল-হারিছের ক্যাম্পে যে উট বেঁধে রাখা হয়েছিল সেগুলোর যত্ন নেবার ভান করে তার স্ত্রীর সঙ্গে পিছনে থেকে যায় এ কথা বলে যে, “তাকে বোলও, যদি সে আমাকে তার পরে ক্ষমতার উত্তরাধিকারিত্ব দেন, তবে আমি তাকে অনুসরণ করব।” 

তারপর যখন তারা মসজিদুন নব্বীতে পৌঁছায়, তখন নবীজী সাবেত বিন কায়েসসহ তাদেরকে দেখতে আসেন।তার হাতে ছিল শুকনো একটা খেজুর পাতার ডাটি যেটি গতদিনও তার হাতে ছিল। নবীজী প্রতিনিধি দলের সম্মুখে পৌঁছিলে তারা তাদের সংশোধিত প্রস্তাব রাখে। তখন নবীজী তাদেরকে বিগত রাতে যে স্বপ্ন দেখেছেন সেটি বর্ণনা করেন।তিনি স্বপ্নে দেখেন তার হাতে দু’টি ব্রেসলেট পরানো যা তাকে অস্বস্তি দিচ্ছিল।তখন তিনি সেগুলোকে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে দূর করে দিলেন। তিনি ঐ ব্রেসলেট দু’টোর সাথে তুলনা করেন দু’জন মিথ্যেবাদীর- মুসাইলিমা ও আল-আসওয়াদের সাথে।

"সুতরাং," তিনি বললেন, “সে ফিরে যাবার পর ধ্বংস হয়ে যাবে। আমি তোমাদেরকে কেবল বলতে চেয়েছি যা আমাকে দেখানো হয়েছে। আর এখানে সাবেত বিন কায়েস রয়েছে, তোমাদের কিছু জানার থাকলে, সেসবের উত্তর সে দেবে।” তিনি চলে গেলেন। 

তখন প্রতিনিধি দলটি নিজেদের মধ্যে আলোচনা করল এবং খৃষ্টান ধর্ম পরিত্যাগ করে ইসলাম গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিল। As was his custom, prophet Muhammad presented gifts to the delegates, and when they had received their gifts one of them said, "We left our comrade in the camp as he wished to look after the camels."
Muhammad gave them gifts for him also, and added, "He is not the least among you that he should stay behind to guard the property of his comrades."

On returning to the camp, they handed the gift to Musaylimah and told him that though he was not with them yet considered one of them. Then Musaylimah embrace Islam. And on their return to Yamama, they converted their tribe to Islam and build a mosque there, started regular prayers.

When Musaylimah came to Medina, he was surprised to see the admiration of people towards Muhammad and that influenced him to be a prophet. Before his "pretensions to prophecy, al-Jàhiz writes, he travelled to the market towns situated between the Arab lands (ধর আল-আরব) and Persia (al-'ajam), learning sorcery, astrology, and tricks of magic, and then returned to his tribe, who are Arabs, and claimed prophecy." Thereafter, some ignorant people had gathered round him. Musaylimah made his people believe that he was receiving revelation from God the Merciful through the angel Gabriel but still not denied the prophethood of Muhammad, rather claimed that he was destined to share this mission with him.

মুসাইলিমা আয়াতগুলো এমনভাবে উপস্থাপন করতেন যেন তা ঐশীবাণী এবং লোকদেরকে বলতেন যে মুহম্মদ তার সাথে ক্ষমতা ভাগ করে নিয়েছেন।-(ইবনে কাছির, আল ফুসুল ফি সিরাত আর-রসূল) তিনি এমনকি নিজেকে রহমান হিসেবে পরিচয় দিতেন, -(অাল-মিসবাহ আল-মুনির তাহজিব ওয়া তাহকিক তফসির ইবনে কাছির) অর্থাৎ তিনি নিজেকে ঐশ্বরিক কিছু গুণের সঙ্গে যুক্ত করেছিলেন। এতে কিছু লোক যারা ইসলাম গ্রহণ করেছিল, তারা নবী মুহম্মদের পাশাপাশি তাকেও নবী হিসেবে স্বীকার করে নিল।

অত:পর নবী হিসেবে মুসাইলিমা নাম যখন পুরো ইয়ামামায় ছড়িয়ে গেল, তখন একপ্রান্ত থেকে তার গোত্রের এক লোক তাকে পরীক্ষা করতে এল। লোকটি বলল, "আমরা জানতে পারলাম তুমি নাকি মুহম্মদের মত নব্যূয়ত দাবী করছ?"
তিনি বললেন, "আমি তাতে তার সঙ্গে একজন অংশীদার।" তারপর তিনি তার অধীনস্তের দিকে ফিরে, যে তার সাথে মদিনায় গমনকারী প্রতিনিধিদলের একজন ছিল, বললেন, “ওই! কস না ক্যান, তিনি কি তোরে বলেননি যখন তুই তাঁর কাছে আমার কথা উল্লেখ করলি- তার স্থান তোমার থেকে কোন অংশে কম নয়? -এর অর্থ এ ছাড়া আর কি হতে পারে যে, তিনি জানেন যে, আমি তাতে তাঁর সাথে একজন পার্টনার?"

লোকটি জিজ্ঞেস করল, “তোমার কাছে কি কোন ফেরেস্তা আসে?"
তিনি বললেন, “হ্যাঁ, তার নাম রহমান".
এতে ঐ লোক জিজ্ঞেস করল, “ঐ ফেরেস্তা কি আলোর না অাঁধারের?"
মুসাইলিমা উত্তর দিলেন, "অাঁধারের।"
তখন ঐ লোক বলল, "আমি স্বাক্ষ্য দিচ্ছি তুমি একজন মিথ্যেবাদী। কিন্তু আমার কাছে ইয়ামামার রাবিয়া গোত্রের একজন মিথ্যেবাদী, হিজাজের নাজার গোত্রের একজন সত্যবাদীর চেয়ে অনেক বেশী প্রিয়।"

ধীরে ধীরে মুসাইলিমার প্রভাব এবং ক্ষমতা তার গোত্র মাঝে বৃদ্ধি পেতে লাগল। একসময় তা সুউচ্চ হল। তার সহচররা তাকে “রহমান আল-ইয়ামামা” বলতে শুরু করল। আরো কিছু কাল পরে, পুরো গোত্র তার সাথে একাত্ম হল।তারপর একদিন মুসাইলিমা দূত মারফৎ নবীজীকে এক পত্র দিলেন।

১১ হিজরীর মুহররম মাসে ইয়ামামা থেকে আগত দু’জন লোককে মদিনায় দেখা গেল, যারা নবীজীর জন্য একটি পত্র নিয়ে এসেছে মুসাইলিমার কাছ থেকে। নবীজীর সেক্রেটারীদের একজন পত্রটি খুলে নবীজীর সামনে তা পাঠ করলেন।তাতে লেখা ছিল-

“আল্লাহর রসূল মুসাইলিমা হতে আল্লাহর রসূল মুহম্মদের প্রতি-
আসসালামু আলায়কুম!
আমি আপনার অংশীদার; ক্ষমতা আমাদের মধ্যে অবশ্যই ভাগ করতে হবে। পৃথিবীর অর্ধেক আমার, বাকী অর্ধেক আপনার কুরাইশদের। কিন্তু কুরাইশরা লোভী জাতি-তাদের মধ্যে ন্যায়বিচার নেই।’

From this letter, it is clear his contrasting attitudes. Musaylimah wrote to Muhammad using the title 'Messenger of Allah' and claimed that God bestowed on him partnership in prophethood (fa-innī qad ushriktu fī l-amri maʿaka). 'Half of the earth was given to Quraish and the other half was allotted to us ie. to Banu Hanifa, but Quraish are people who exceed their bounds.'

And when the Prophet came to know about the contents of the letter he turned to those, who had brought it and asked them what the two had to say about the affair of Musaylimah and they replied that their opinion was the same as of Musaylimah. Then the Prophet said: "If you had not been the ambassadors and messengers I would have ordered you to be put to death." he continued, "When you had already embraced Islam and acknowledged my prophethood, why did you follow such a blockhead and give up the sacred religion of Islam?"

Prophet Muḥammad categorically rejected the quest of Musaylimah to share his mission or be appointed his successor after death. However, he called his secretary and dictated a brief reply.

“পরমদাতা ও দয়ালু আল্লাহর নামে-
আল্লাহর রসূল মুহম্মদ থেকে প্রতারক মুসাইলিমার প্রতি-
‘যারা সত্যপথের অনুসারী তাদের প্রতি সালাম। পৃথিবী আল্লাহর, তিনি যার প্রতি সদয় হন তাকেই দুনিয়ার কর্তৃত্ব দান করেন। কেবল পরহিজগারদের জন্যেই পরকাল (শুধু তারাই সুফল লাভ করবে, যারা আল্লাহকে ভয় করবে)।’
(মোহর):
রসূল আল্লাহ।” -(অাল-তাবারী)

Here, the Prophet addresses Musaylimah as 'the liar' asserts that the earth (in its entirety) belongs to God who gives it 'as heritage to whomever he pleases of his servants' -(Bayhaqi, Mausin). From that time Muslim also used to call him 'Musaylimah the liar' (al-kadhdhab). on the basis of Ibrahim's prayer for 'one' messenger during reconstructing Ka'ba and also on the basis of the Qur'an that already declared Muhammad as the `Seal of the Prophets'.

“আর যখন ইব্রাহিম ও ইসমাইল (কা’বা) গৃহের ভিত্তি স্থাপন করছিল, তখন তারা বলেছিল, ‘হে আমার প্রতিপালক! তুমি আমাদের এ কাজ গ্রহণ কর। তুমি তো সব শোন আর সব জান। 
--হে আমার প্রতিপালক! তুমি আমাদের দু‘জনকে তোমার একান্ত অনুগত কর ও আমাদের বংশধর হতে তোমার অনুগত এক উম্মত (সমাজ) তৈরী কর। আমাদেরকে উপাসনার নিয়ম পদ্ধতি দেখিয়ে দাও, আর আমাদের প্রতি ক্ষমাপরবশ হও! তুমি তো অত্যন্ত ক্ষমাপরবশ পরম দয়ালু। 

--হে আমার প্রতিপালক! তাদের মধ্যে থেকে তাদের কাছে ”একজন” রসূল প্রেরণ কোরও যে তোমার আয়াত তাদের কাছে আবৃত্তি করবে, তাদেরকে কিতাব ও হিকমত শিক্ষা দেবে এবং তাদেরকে পবিত্র করবে। তুমি তো পরাক্রমশালী, তত্ত্বজ্ঞানী।-(২:১২৭-২৯)
"মুহম্মদ তোমাদের কারো পিতা নন, বরং তিনি আল্লাহর রসূল এবং “নবীগণের মোহর”। আর আল্লাহ সর্ববিষয়ের জ্ঞান রাখেন।"-(৩৩-৪০)

এদিকে নবীজীর দূতদ্বয় ইয়ামামায় পৌঁছিলে মুসাইলিমার লোকেরা তাদেরকে বন্দী করে তার সামনে হাজির করে। ‍অার তিনি প্রচলিত রীতি ভঙ্গ করে তাদের সাথে কুকুরের মত ব্যবহার করেন এবং তাদেরকে তরবারীর নীচে রাখেন।তারপর তিনি তাদের কাছে স্বীকারোক্তি দাবী করেন যে, তিনিও মুহম্মদের মত একজন নবী। One of them did so when the pressing sword going much deeper cutting the skin of his neck.Thus he saved his life, but the other refused to confess. At this, Musaylimah cut him limb by limb. At the loss of every limb, when asked, the man kept denying him.till his death,

Yet, the prophet didn't take any action against Musaylimah, maybe or because of the dream that described above. However, Musaylimah claimed to be the recipient of divine revelation to heal the sick and work miracles. His Teachings were almost lost. He sought to abolish prayer and freely allow sex and alcohol consumption.-(Ibn Kathir, The Life of the Prophet Muhammad, pg-69), He also decreed that a man was not to have intercourse with any woman so long as he had a son alive.-(Tabart, p. 1917.) Yet he prohibited pigs and wine, taught three daily prayers to the God, facing whatever side, Ramadan fasting at night, but no circumcision.

It was interesting that Musaylimah also took to addressing gatherings as a messenger of Allah just like Muhammad, and would compose verses and offer them, as Qur'anic revelations. Musaylimah learned of Quranic verses and techniques through ar-Rajjàl bin 'Unfuwah, the renown warrior of the Banu Hanifah delegation to Muhammad who later apostasized,-(Baladhuri, p.132; Watt, Medina, p.134; Tabari, p.1932.) or a Qur'ànic teacher sent by Muhammad to the Banu Hanifah who did the same.-(Tabari, pp.1932, 1941; ad-Diyarbakri, p.175; Baladhuri, p.133. Cf. Tabarr, Chronique, pp. 294-297). However, most of his verses extolled the superiority of his tribe, the Banu Hanifa, over the Quraish.

Many of Musaylimah's extant revelations are directed exclusively to a settled audience. Below are several examples of Musaylimah's so called revelations, though the context in which he recite those is not known-

Croak, frog, as thou wilt:
Part of thee in the water and part in the mud;
Thou hinderst not the drinker,
Nor dost thou befoul the stream. -(Margoliouth, Origin, p. 488)

ইয়া দিফদি, ইবনা আত-দিফদি,
নুক্কি মা তানুক্কিন,
আলাক ফি-ইলমা ওয়া আসফাক ফিত্তিন,
ওয়া লা ইলমা তুকাদ্দিরিন। -(তাবারী, পৃষ্ঠা ১৯৩৪).

"The elephant, what is the elephant, 
and who shall tell you what is the elephant? 
It has a poor tail and a long trunk; 
and is a trifling part of the creations of thy God".

"Verily we have given thee the jewels: 
take them to thyself and hasten; 
yet beware lest thou be too greedy or desire too much".

"By the land covered with grass, 
by the mountains covered with whiteness, 
by the horses bearing saddles...."

"Happy are those who say their prayers, 
who give what is required of their surplus, 
who nourish the poor from their sack of provisions". -(Tabari, pp. 295-96)

"By various types of sheep ...
by the black sheep and its white milk, 
indeed it is a pure surprise, 
and the wine was forbidden
Why don't you wonder about these things"? -(Tabari, p. 1933)

অাল-ইয়ামামা
In Yamāma, Musaylimah succeeded in gaining the support of many tribal groups who came under his control after the death of Hawdha, the former chief of the area in the service of Persia. In the last years before the Prophet's death, he attempted to establish a social order based on an alliance between the people of Yamāma and tribal groups which moved to Yamāma and settled there.

Musaylimah erected a safe area (Haram) in which certain places inhabited by his allies (Qurā al-Aḥālīf) were included. According to sources, the Haram was managed in a corrupt way and the Banu Usayyid, who served as its guardians mistreated other groups.

In years of good harvest the nomadic Banu Asad would raid the villages of al-Yamàma and then withdraw into the sacred area (Haram) set up by Musaylimah, using it as a sanctuary. This happened repeatedly, even after warnings, until the people of al-Yamàma prepared to pursue the Banu Asad into the sacred area. Musaylimah stopped them, saying: "Wait for he who comes to me from heaven," and then revealed:

'(I swear) by the darkness of the night and by the black wolf, the Usayyid did not violate [the sanctity] of the Haram'.

The people of al-Yamama replied. "Is the meaning of the Haram to make permissible the forbidden and destroy [our] property?"
Later, Banu Asad again raided al-Yamama and again Musaylimah prevented his followers from entering the sacred area, with "the one who comes to him" revealing through- '[I swear] by the dark night and by the softly treading lion, the Usayyid cut neither fresh nor dry.'-(Tabarï, pp. 1932; cf. Tabari, Chronique, p. 294]

The death of the prophet Muhammad raised the hopes of the community of Musaylimah. In one of the speeches said to have been delivered in that period and which was directed to the Banu Hanifa, Musaylimah stressed the qualities of his people and his land in comparison with Quraish and Mecca:

'What made Quraish more deserving of prophethood than yourselves? They are not greater in number than you; your land is wider than their land. Gabriel descends from heaven like he used to descend to Muhammad.'

Musaylimah claimed that the revelation transmitted to Muhammad had ceased with his death and henceforth it would be transmitted to him alone. The feeling that he was now the sole prophet is expressed in a verse attributed to Musaylimah:

O you, woman, take the tambourine and play, and disseminate the virtues of this prophet! Passed away the prophet of Bani Hashim, and rose up the prophet of Bani Ya'rub. -(Ibn Kathir, Bidhya, vi, 341).

Musaylimah's adherents grew in number and prestige. The situation in Yamama inspired a feeling of security and peace. This feeling was, however, shaken by the unexpected arrival of a former soothsayer, who claimed that she had been granted revelations from heaven. Her name was Sajah bint al-Harith. She was a Christian of the tribe of Tamim but lived among the Christian Arabs of Taghlib.

ইসলাম গ্রহণ করা বা না করা ব্যক্তির নিজস্ব ব্যাপার। কিন্তু একবার স্বইচ্ছায় ইসলাম গ্রহণ করে কেউ তা পরিবর্তণ করতে পারে না। কারণ, এ ধর্ম সত্যের।সুতরাং ইসলাম পরিত্যাগ অর্থ সত্যের উপর অপবাদ আরোপ এবং সত্যকে অস্বীকার করার শামিল, যা মানবতার বিরূদ্ধে অপরাধ হিসেবে বিবেচ্য। কারণ তা একদিকে যেমন আল্লাহ ও তাঁর রসূলের উপর মিথ্যে আরোপ করে, তেমনি অন্যদিকে নব্য মুসলমান ও অন্য ধর্মাবলম্বী ব্যক্তিবর্গের সম্মুখে খোদায়ী ধর্মের মর্যাদা ও মাহত্ম্যকে ভূ-লুন্ঠিত করার পাশাপাশি খোদায়ী ধর্মের প্রতি আগ্রহী একদল মানুষকে নিরুৎসাহিত করে, যা তাদের পরকালীন জীবনের জন্য অপূরণীয় ক্ষতির কারণ হিসেবে দেখা দেবে।

মুসাইলিমা ও তার গোত্রীয় লোকেরা ইসলাম সম্পর্কে পূর্ণ অবগতির পর স্ব-ইচ্ছায় তারা মুসলমান হয়েছিল, অত:পর তারা তাদের মিথ্যে নব্যূয়তের দাবী (যেহেতু কোরআন নব্যূয়তের ধারা সমাপ্তি ঘোষণা করেছিল।) দ্বারা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের উপর মিথ্যে আরোপ করল এবং নব্য মুসলমান ও অন্য ধর্মাবলম্বী ব্যক্তিবর্গের সম্মুখে খোদায়ী ধর্মের মর্যাদা ও মাহত্ম্যকে ভূ-লুন্ঠিত করার পাশাপাশি মানুষকে ঐ ধর্ম গ্রহণের পথে বাঁধা সৃষ্টি করে তাদের অপূরণীয় ক্ষতি করে যাচ্ছিল। প্রকৃত মুসলমান কাউকে সত্য গ্রহণ করার পর তাকে সত্যের খেলাপ ও সত্যের অপলাপ করতে দিতে পারে না। এদেরকে দমন ও কঠোর শাস্তির আওতায় আনা অপরিহার্য্য ছিল। আর এটাই আবু বকরকে ঠেলে দেয় রিদ্দায়- the Wars of Apostasy

খেলাফত লাভের পর আবু বকর যখন সাহাবাদের সাথে এই বিষয়ে পরামর্শ করলেন, তখন কেউই প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণে সম্মতি দেন নি। তখন আবু বকর তাদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, ‘যারা মুসলমান হবার পর, রসূল প্রদত্ত নির্দেশ ও ইসলামকে অস্বীকার করে, তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্রধারণ করা আমার কর্তব্য। যদি আমার বিপক্ষে সব জ্বিণ, মানব ও বিশ্বের যাবতীয় বৃক্ষ-প্রস্তর একত্রিত করে আনা হয় এবং আমার সাথে কেউই না থাকে, তবুও আমি একাই ধর্মের জন্যে এই যুদ্ধ চালিয়ে যাব।’- এই বক্তব্যের পর সাহাবারা এগিয়ে আসেন এবং তাকে এক জায়গায় বসিয়ে রেখে বিভিন্ন রণাঙ্গনে সেনাবাহিনী প্রেরণের জন্যে মানচিত্র তৈরী করে ফেলেন।

The wars of apostasy emerged following the death of Muhammad. At that time Sajah bint al-Harith ibn Suaeed declared she was a prophetess after learning that Musaylimah and Tulayha had declared prophethood.-(Brill, encyclopedia of Islam, pg-665). She gathered 4,000 people around her to march towards Medina. Others were willing to join her against Medina. However, her plan to attack Medina was called off after she came to infom that the army of Khalid bin al-Walid had defeated Tulayha al-Asadi.-(Al-Sira Al-Nabawiyya By Ibn Kathir, pg.36) Thereafter, she sought cooperation with Musaylimah to oppose the threat of Khalid.

Musaylimah invited her to meet him in order to negotiate a peaceful solution. He recognized Sajah as his partner in prophethood and declared that the land allotted by God to Quraish would be transferred to Sajah and her people. The other half would belong to Musaylimah. Moreover, Musaylimah granted Sajah the crops Yamama had produced that year and promised her the crops of the next year.-(Tabari, pp. 1919-1920, a tradition from Sayd bin 'Umar).The ability to make such an offer depends only upon Musaylimah's having the settled elements of Banu. Hanifah under his control.

A mutual understanding was initially reached with Musaylimah. At a pleasant moment, Sajah inquired and wanted to hear some verses that reveled to him. Then he began to utter rhymes in a soft but heart touching voice- 

"God has been gracious to the pregnant woman; 
He has brought forth from her a living being
that can move from her very midst." -(Ibn Ishaq: P 636-37; Tabari: pp. 1737-38).

On hearing the verse from Musaylimah she said, "All speech-act that had its origin in the unseen powers, all speech-act- that was not a daily mundane use of words, but had something to do with the unseen powers, such as cursing, blessing, divination, incantation, inspiration, and revelation, had to be couched in this form" [saj,].

Musaylimah told her that God revealed to him that a woman's place in life is on the bed, he recited:

"God created women with a wide-open cleft,
And made men as partners for her;
Then we penetrate the clitoris,
And she bears children for us." -(Tabari, pp. 1917-1918).

Sajah recognized Musaylimah as a prophet, whereupon he says: "Shall l marry you? Then l can conquer' the Arabs (al- 'Arab) with your people and mine."
Later, the two married.

Then Sajah returned to Jazira after a few days (3 days in some account). She return because she was not willing to abandon her people.

According to some sources, the forces led by Sajah intended to attack the troops of Abu Bakr under the command of Khalid bin al-Walid who set out to crush the apostasy (Ridda) of the tribes after the Prophet's death. In her forces were warriors from her people and others who joined them. After some skirmishes, she decided to fight Musaylimah and conquer Yamama.

Abū Bakr became aware of the rising authority of Musaylimah and decided to send Khalid bin al-Walid at the head of the Muslim army to fight Musaylimah. After the defeat of Tulaiha Khalid receive the order from the Khaliph. So he moved his men to Yamama to fight Musaylimah and his forces. Later Abu Bakr wrote Khalid, stressing the power of the Banu Hanifa and their courage.On his way to Yamama, Khalid received the letter and informed his army concerning Banu Hanifa.

বনু হানিফার অবস্থান
Musaylima's agents informed him of the march of Khalid. The route from Butah to Yamamah came through the Wadi Hanifa, and on the north bank of this wadi, behind Jubaila, lay the plain of Aqraba which marked the outer limit of the fertile region that stretched from Aqraba to Yamama and further south-east. Musaylimah had no intention of letting the Muslims play havoc with the towns and villages of his people. Consequently he took his army forward to Jubaila, 25 miles north-west of Yamama, and established his camp near Jubaila, where the plain of Aqraba began. From this location Musaylimah could not only defend the fertile plains of Yamama but also threaten Khalid's route of advance, so that should Khalid blunder through the Wadi Hanifa, the Banu Hanifa would fall upon his left flank.

Khalid was still some distance from Yamama when his men brought the information that Musaylimah was encamped in the plain of Aqraba, on the north bank of the Wadi Hanifa through which, the road led to Yamama. Not wishing to approach his enemy through the valley, Khalid left the road a few miles west of Aqraba, moved from the south and appeared on the high ground which rose a mile south of the wadi opposite the town of Jubaila. From this high ground Khalid could see the entire plain of Aqraba, on the forward border of which stretched the camp of the Banu Hanifa. Khalid established his camp on the high ground.

যুদ্ধের জন্য দু’দল মুখোমুখি হল।মুসাইলিমার যোদ্ধা ছিল ৪০ হাজার।তিনি তার বাহিনীকে বিন্যাস করলেন-মধ্যভাগ এবং বাম ও ডানে দু’টো উইং। বাম উইং এর কমান্ডে ছিল আর-রাজ্জাল, ডান উইংএ মুহাকিম বিন তোফায়েল এবং মধ্যভাগ সে তার নিজের কমান্ডে রেখেছিল। অন্যদিকে খালিদের নেতৃত্বে মুসলিম মুজাহিদ ছিল ১৩ হাজার।তারা ফজরের নামাজ শেষে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হলে, খালিদ তাদেরকে ওয়াদি হানিফার দক্ষিণ তীরে মুসাইলিমার অনুরূপ- একটা মধ্যভাগ ও দু’টো উইং-এ বিন্যাস্ত করেন। বাম উইং এর নেতৃত্বে ছিলেন আবু হুদাফা এবং ডান উইংএ জায়েদ, ওমরের জৈষ্ঠ্য ভ্রাতা। আর মধ্যবর্তী অংশ ছিল সরাসরি খালিদের অধীন।

রিদ্দা-আকরাবার যুদ্ধ।
মুসাইলিমার সেনাবাহিনী তিনগুণ বেশী হলেও খালিদ যুদ্ধ জয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলেন, কারণ তিনি নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন তাদের, যারা ছিল ‘সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় জীবনদানকারীর স্বর্গপ্রাপ্তি সুনিশ্চিত’ -খোদায়ী এই প্রতিজ্ঞায় পূর্ণ বিশ্বাসী। আর বনু হানিফাদের দক্ষতা ও দু:সাহস এ যুদ্ধকে রক্তক্ষয়ী করে তুলবে তাতেও তিনি সন্দিহান ছিলেন না। কারণ ইতিমধ্যে আবু বকর তাকে এ ব্যাপারে সতর্ক করেছেন পত্র মারফত। যাহোক, খালিদের নির্দেশ পেয়ে মুসলিম মুজাহিদগণ ওয়াদির উত্তর তীরের দিকে ছুটে গেল, যেখানে মুসাইলিমা তার যোদ্ধাদের নিয়ে বূহ্য রচনা করে অপেক্ষায় রয়েছেন খালিদের আক্রমণ প্রতিহত করার প্রতিজ্ঞা নিয়ে।

The actual valley of Wadi Hanifa marked the battle front. On the northern side the bank rose to about 100 feet, rising gently at places, steeply at others, and precipitously at yet others. On the southern side it rose more gently and continued to rise up to a height of 200 feet, a mile away from the valley where Khalid had pitched his camp. On the north bank also lay the town of Jubaila and on the western edge of the town a gully ran down to the wadi. The Muslim front ran along the southern bank for a length of about 3 miles, on the northern bank stood the apostates.The town and the gulley marked the centre of Musaylima's army. Behind the apostates stretched the plain of Aqraba; and on this plain, about 2 miles from the wadi, stood a vast walled garden known as Abaz. As a result of this battle it was to become known as "The Garden of Death."

শীতকালে, ৬৩২ সনের ডিসেম্বরের ৩য় সপ্তাহ, ১১ হিজরী শাওয়ালের শুরুর দিকের এক প্রভাতে ইয়ামামার যুদ্ধ শুরু হয়। Musaylimah's army stood as firm as a rock. Many fell before the onslaught of the Faithful, but there was no break in their front. The apostates fought fanatically, preferring death to giving up an inch of ground; and the Muslims realized with some surprise that they were making no headway. After the Muslims hard slogging to penetrate his wings, Musaylimah, realizing that if he remained on the defensive much longer the chances of a Muslim break-through would increase, ordered a general counter-attack all along the front. The apostates moved forward like a vast tidal wave, and the Muslims now found to their horror that they were being pressed back.

The Muslims proceeded to fall back steadily. Then the pace of withdrawal became faster. The apostate assaults became bolder. And the Muslim withdrawal turned into a confused retreat. Some regiments turned and fled, others soon followed their example. The officers were unable to stop the retreat and were swept back with the tide of their men. The Muslim army passed through its camp and stopped at a distance.

As the Muslims left the plain of Aqraba, the apostates followed in hot pursuit. This was not a planned manoeuvre, but an instinctive reaction,they stopped at Muslims camp and began to plunder it. The battle hung in the balance and gave no sign of victory. বরং দৃশ্যত: মুসলিমদের পশ্চাৎপসারণ পরাজয়ের নামান্তর।

With their hearts set on victory, their first assault was a success and Khalid was driven out of his tent. Entering the tent, they found Layla, Khalid's wife, and Mujja'ah, one of their chiefs whom Khalid had taken prisoner on his way to`Aqraba and who had been kept in fetters ever since. Layla had charge of him, and they rushed to kill her but they were stopped by Mujja'ah who asked them to spare her life because she had treated him well.

Khalid now realized that with their fanatical faith in their false prophet the apostates would not give in. So the only way to minimize causalities is the death of Musaylimah that could break the spirit of the apostates. But Musaylimah was in the safety of the apostate ranks in which he stood surrounded by his faithful followers.

Then, Khalid proposed talks to Musaylimah and he agreed.Then when khalid comes closer to him, he stepped forward cautiously and halted just outside dueling distance of Khalid. "If we agree to come to terms, what terms will you accept?" inquired Khalid.

Musaylimah cocked his head to one side as if listening to some invisible person who stood beside him and would talk to him. It was in this manner that he 'received revelations'! Seeing him thus reminded Khalid of the words of the Holy Prophet, who had said that Musaylimah was never alone, that he always had Satan beside him, that he never disobeyed Satan, and that when worked up he foamed at the mouth. Satan forbade Musaylimah to agree to terms, and then he turned his face to Khalid and shook his head.

Khalid already determined to kill Musaylimah. The talks were only bait to draw him close enough.He would have to work fast before Musaylimah withdrew to the safety of his guards. Khalid asked another question. Again Musaylimah turned his head to one side, intently listening to 'the voice.' At that instant Khalid sprang at him.

Khalid was fast. but Musaylimah was faster. In a flash he had turned on his heels and was gone!

Musaylima was safe once again in the arms of his guards. But in that moment of flight something meaningful happened to the spirit of the two armies, depressing one and exalting the other. The flight of their 'prophet' and commander from Khalid was a disgraceful sight in the eyes of the apostates,To exploit the psychological opportunity which now presented itself, Khalid ordered an immediate renewal of the offensive. The spirits of the Muslims rose as they redoubled their efforts. Then the infidel front broke into pieces the commander of his right wing, Muhakim, who came to the rescue of the apostates."Banu Hanifa!" he shouted. "The garden! The garden! Enter the garden and I shall protect your rear."

The bulk of the army broke and fled, scattering in all directions. Only about a fourth of Musaylimah's army remained in fighting shape, and this part hastened to the walled garden while Muhakim covered its retreat with a small rear-guard. and fell to the arrow of the Caliph's son, Abdur-Rahman.

A little over 7,000 apostates, Musaylimah among them, had taken shelter. The infidels had closed the gate, and as they looked at the high wall that surrounded the vast garden, they felt safe and secure.

The major portion of the Muslim army assembled in the vicinity of the Garden of Death. It was now afternoon, and the Muslims were anxious to get into the garden and finish the job that they had started early that morning, before darkness intervened. But no way could be found into the garden. The wall stretched on all sides as an impenetrable barrier, with the gate securely bolted from within. There was no siege equipment, nor time to spend on a siege.

While Khalid searched his brain for ideas, an old warrior by the name of Baraa bin Malik, who stood in the group that confronted the gate, said to his comrades "Throw me over the wall into the garden." His comrades refused, for Baraa was a distinguished and much-respected Companion, and they hesitated to do something which would certainly result in his death. But Baraa insisted. At last his comrades agreed to his request and lifted him on their shoulders near the gate. He got his hands onto the edge of the wall, swung himself up and jumped into the garden. In a minute or so he had killed two or three infidels who stood between him and the gate, and before others could intercept him, he had loosened the heavy bolt. The gate was flung open and a flood of Muslims roared through it like water thundering through a breach in a dam. The last and most gory place of the Battle of Yamama had begun.

In the clashes with the Banu Hanifa, a division of the army that came from those Medinans who had assisted Muhammad in his emigration from Mecca (the Ansar) attacked Yamama and fought bravely together with the Meccans who had fled with Muhammad (the Muh'jirin). They were summoned to help out in dangerous situations in the bloody battle of 'Aqrab'.

At the outset, the Banu Hanifa succeeded in repulsing the Bedouin attacks. The solution of Khalid was to put the Bedouin fighters of the army behind the lines of the well motivated and steadfast warriors of the Emigrants (Muhajirin) and Helpers (Ansar).

When Khalid's siege was tightened and the eventual defeat of this pretender became evident some of Musaylimah's simple-minded follower asked him: "What has happened to the occult help and support which you had promised us?"

Musaylimah replied: "There is no news about occult law and help. It was a false promise which I gave you. However, it is incumbent upon you to defend your honour and greatness".However, defense of honour and greatness was of little avail!

This above sayings of Musaylimah shows that he was an eloquent speaker and it also shows that he is not at all the speaker of those insipid sentences, which history has attributed to him, as specimens of his contention with the Holy Qur'an.

মুসাইলিমা নিহত হন দূর থেকে উড়ে আসা জ্যাভলিনে, যা তাকে এফোঁড় ওফোঁড় করে দিয়ে মাটিতে তাকে গেঁথে ফেলেছিল। আর যখন সে প্রচন্ড যন্ত্রণায় দু’হাতে জ্যাভলিনটি তুলে ফেলতে চেষ্টা করছিল, তখন আবু দো’জনা তার তরবারীর আঘাতে তার শির বিচ্ছিন্ন করে ফেলেন। কিন্তু তিনি মুসাইলিমার নিহত হবার খবর প্রচার করতে পারেননি। মাথা উঁচু করতেই তার শিরও তার গর্দান থেকে লাফিয়ে পড়ে মুসাইলিমার শিরের দিকে গড়িয়ে যায়।

মুসাইলিমা নিহত হন ওয়াইশি ইবনে হার্বের দূর থেকে ছুঁড়ে দেয়া জ্যাভলিনে। According to some far-fetched traditions, Musaylimah was 140 or 150 years old when he died in 11/632.

মুসাইলিমা নিহত হবার খবর প্রচারিত হবার পর যুদ্ধ আর প্রলম্বিত হয়নি। Some turned in suicidal desperation to greater violence, but they could only prolong their agony, not save their lives. Most of the apostates ceased to struggle, and in total despair waited for a Muslim sword to end their suffering. By the time the sun set, peace and quiet had returned to the Garden of Death.

The intense loyalty of Musaylimah's followers can be gauged from the various stories that have been passed down. A woman who heard about his death exclaimed, 'Alas, prince of the believers!' (ওয়া আমির আল-মুমিনাহ). A wounded warrior of the Banū Hania, in his agony, asked a Muslim warrior to kill him in order to put him out of his misery. Upon hearing of Musaylima's death, he remarked: 'A prophet whom his people caused to perish' (Nabiyyun ḍayyaʿahu qawmuhu). By these words, the Muslim Mujahedin gave him the "coup de grâce".

মুসাইলিমার অনুসারীর এক বহৎ অংশ নিহত হয় দেয়াল ঘেরা তার স্যাক্রেড হারামের অভ্যান্তরে ও বহি:স্থ প্রাঙ্গনে।স্থানটি পরবর্তিতে মউত উদ্যান 'Garden of Death' হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। এই যুদ্ধে মুসলিম যোদ্ধাদের অসীম সাহসিকতার অনেক নমুনা বিভিন্ন উৎসে দেখতে পাওয়া যায়। তবে মুসাইলিমার অনুসারীগণও যুদ্ধ করেছিল নির্ভিক চিত্তে ফলে বিজয়ী হলেও মুসলমানদেরকে যথেষ্ট মূল্য দিতে হয়েছিল।যুদ্ধে আবু দো’জনা (যিনি ওহুদ যুদ্ধে মানববর্ম হয়ে নবীজীকে তীরের আঘাত থেকে রক্ষা করেছিলেন), আবু হুদাইফা (বাম উইং কমান্ডার), ওমরের ভ্রাতা জায়েদ (ডান উইং কমান্ডার) এবং চার’শ কোরআনে হাফেজসহ প্রায় ১২০০ মুসলিম নিহত হয়। অন্যদিকে মুসাইলিমাসহ তার অনুসারীরা নিহত হয় ২১ হাজারের মত, যার ৭ হাজার নিহত হয়েছিল ওয়াদির উন্মুক্ত ময়দানে খালিদের ১ম ও ২য় আক্রমণে, ৭ হাজার মুসাইলিমার স্যাক্রেড হারামের অভ্যান্তরে এবং অবশিষ্টরা ছিল তারাই যারা মুসাইলিমা নিহত হবার পরও তার নবূয়্যত অস্বীকার করতে সম্মত হয়নি।

মুসাইলিমা নিহত হবার পর খালিদ নজদের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসবাসকারী বনু হানিফাদের বিভিন্ন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গোষ্ঠীর কাছে মুসলিম যোদ্ধাদের ছোট ছোট দল প্রেরণ করেন তাদের বশ্যতা আদায়ে, ইসলামের ছায়াতলে ফিরে আসার আহ্ববান জানিয়ে। আর প্রেরিত ঐ যোদ্ধা দল গিয়ে তাদের কাছে গিয়ে তাদের বিশ্বাস সম্পর্কে জানতে চায়। মূলত: তারা গোত্রের প্রতিটি সদস্যকে প্রশ্ন করেছিল- সে কার উপর বিশ্বাস করে? মুহম্মদ না মুসাইলিমা?

মুসাইলিমা নিহত এবং বনু হানাফির অধিকাংশ গোত্রগুলো তাদের গণ্যমান্য নেতৃবর্গ যুদ্ধে হারিয়েছিল, তথাপি তারা ছিল দূর্বিনীত কোন ব্যাতিক্রম ছাড়াই। তারা অনুশোচনা করেনি, করতে রাজীও হয়নি। তবে তাদের কেউ কেউ কেবল এমন অভিমত দিয়েছিল- "Let there be a prophet from among you and a prophet from among us!" কেন এমন তারা করল, তাদের কাছে জীবনের কোন মূল্য ছিল না? মুসালিমার নব্যুয়তে বিশ্বাসে? 

Actually Musaylimah's success in converting the majority of his tribe is not well explained in the history. The tribal prestige and honour is not sufficient for the explanation for his gathering 40,000 of his men those willing to fight until death with him against Muslims?

Actually, Arabs were not familiar with the prophets. They have no knowledge of prophets, even most of them were not aware of the scriptures. but they were familiar with the Kahins. আমরা  উপরে ইতিমধ্যে এ বিষয়ে আলোচনা করেছি। আর ঐ আলোচ্য বিষয়ের আলোকে বলা যায়, তারা জীবন দিয়েছিল কেবল তাদের প্রাচীন বিশ্বাসে-

তাদের [সূতসায়ারদের] mantic knowledge is based on ecstatic inspiration . . . [which] is of satan origin: a Djinnï. The kahins often express themselves in very obscure and ambiguous language. They give. greater emphasis to their utterance by striking oaths, swearing by the earth and sky, sun, moon and stars, light and darkness,evening and morning, plants and animaIs of all kinds....

Kahins play an extremely important part in public as well as private life. They are interrogated on aIl important tribal and state occasions . . In private life, the kahins especially act as judges in disputes and points of law of aIl kinds. ...Their decision is considered of divine judgement against which there is no appeal.” -[SEI, p. 207; G. Ryckmans, pp. 11-12; Blachère, Histoire, pp. 188-195]. 

ইসলামে কারো ধর্ম পালনে বাঁধা দেয়া যেমন নিষিদ্ধ তেমনি ইসলাম গ্রহণে জোরজবরদস্তিও নিষিদ্ধ। ইসলাম গ্রহণ করা বা না করা ব্যক্তির সম্পূর্ণ নিজস্ব ব্যাপার। কেননা মানুষ স্বাধীন ভাবে সৃষ্ট, তাদেরকে দেয়া হয়েছে ভাল-মন্দ পার্থক্য করার জ্ঞান, দেয়া হয়েছে বিবেক। সুতরাং মানুষ তার জ্ঞান ও বিবেক ব্যবহার করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে এ তো খোদা প্রদত্ত অধিকার। যা খোদা দিযেছেন তা ছিনিয়ে নেবার অধিকার কারো নেই।

কিন্তু, ইসলাম খোদায়ী ধর্ম- "the Religion of Truth" [পৃধিবীর প্রথম মানব আদম এ ধর্মের ভিত রচনা করেন, অত:পর এক লক্ষ চব্বিশ হাজার পয়গম্বর এ ধর্ম প্রচার করেন, যাদের মধ্যে রয়েছেন ইব্রাহিম, মূসা, দাউদ, ঈসা। আর নবী মুহম্মদের মাধ্যমে এটি পূর্ণতা পায় এবং এরই মধ্য দিয়ে আদমের নিকট করা খোদায়ী প্রতিজ্ঞাও পূর্ণ হয়] সুতরাং কেউ ইসলাম তথা সত্য গ্রহণ করে অত:পর তা বর্জন করতে পারে না। সত্য অস্বীকারকারী, সত্যের অপব্যাখ্যাকারী এবং সত্যের অপলাপকারী মানুষের এবং খোদার শত্রু। ইসলামে একাজ চরম ঘৃণ্য বিবেচিত, কারণ তা মানবতা বিরোধী। আর তা এ কারণে যে, তা সত্যের আলো বঞ্চিত এবং শিক্ষা ও জ্ঞানে পিছিয়ে থাকা একদল মানুষকে বিভ্রান্ত করে তুলতে পারে, যা তাদেরকে অসীম ক্ষতির সম্মুখীণ করবে পরকালে। আর মুসলমান হবার পর কারো দ্বারা মানবতা বিরোধী অপরাধ সংঘটন, ইসলামে মানুষ হত্যার চেয়ে গুরুতর অপরাধ হিসেবে বিবেচ্য। এদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের নির্দেশ রয়েছে, যেমন-

And if they break their oaths after their agreement and revile your religion, then fight the leaders of disbelief -surely their oaths are nothing -so that they may desist. -(Qur'an 9:12)

Narrated 'Abdullah: Allah's Apostle said, "The blood of a Muslim who confesses that none has the right to be worshiped but Allah and that I am His Apostle, cannot be shed except in three cases: In Qisas for murder, a married person who commits illegal sexual intercourse and the one who reverts from Islam (apostate) and leaves the Muslims."- Bukhari , Volume 9, Book 83 , No-17.

আর এই নীতির আলোকে খলিফা আবু বকর অনুশোচনা করতে অস্বীকারকারী হানিফা গোত্রের প্রত্যেক পূর্ণ বয়স্ক পুরুষকে হত্যার আদেশ দিয়েছিলেন। -(বার্থোল্ড, ৫০২-৫১১). ফলে তরবারীর নীচে পড়ল অবশিষ্ট বনু হানাফির অধিকাংশ- যাদের সংখ্যা কম- বেশী সাত হাজার।

Sajah, or her people not attack Khalid and Khalid not involved war with Sajah as the Caliph Abu Bakr not declared war against her though she declared herself as a prophetess -because she was a Christian. So, she was allowed to live unharmed with her family amongest her tribe during Rashidun Caliphate. But Muawiyya forcefully expelled her from the land. So she came to Basra, Iraq and living there. 

The belief in the prophethood of Musaylimah survived among his believers in the first decades of Islam. When Sajah moved to kufa at Basra, some of the Musaylimah's follower followed her and set there around her. They later build a mosque there.

Musaylimah's adherents used to gather in the mosque of the Banu Hanifa in Kufa and the call 'la ilaha illal llah wa-Musaylimah rasulallah'  was heard from the minaret.

During his governorate in Kufa (Several years after the Prophet), Ibn Mas'ud came to know that one of the two men who had carried Musaylimah’s letter to the Prophet re-appeared in the city who still believed in Musaylimah’s messengership. Ibn Mas'ud ordered to arrest him. Then, when he brought to him, he told him that Musaylimah had lost his immunity since he was no more an ambassador and got him beheaded. And then, he ordered the detention of the followers of Musaylimah. Some fled, some captured and jailed. Those who repented, were released and those who clung to their faith were executed.
And then Sajah converted to Islam and were remain believer till her death.

কাহিনীর প্রথম অংশের সমাপ্তি।
দ্বিতীয় অংশের জন্য পড়ুন- FARUQUEZ: Sadikias: Muslimah or Musaylimah?
ছবি: http://www.justislam.co.uk.

Source:
M. J. Kister, Musaylima. (http://www.kister.huji.ac.il/content/musaylima)
Dale F Eickelman, Musayllmah: An Anthropological Appraisal.
al-Tabari (d. 923), Tārīkh al-Rusul wa al-Mulūk.
Ibn Ishaq (d. 768), Sirat Rasül Allah.
Ibn Abd al-Barr al-Namari, al-Durar fi ikhtiur al-magh'zi wa-l-siyar,
Ibn Sa'd, Kitab Al-Tabaqat Al-Kabir.
Yaqut b. Abdallah al-Hamawi (d. 1229), Mu'jam al-bulddn. ll
al-Bukhari (d. 870), A.s- Sahih.
Ad-Diyàrbakri (d. 1574), Ta'rikh al-Khàmis fi A'wal Anfus  an_Nafis.
al-Baladhuri, Kitàb Futüh al-Buldàn.
al-Bayhaqī, Dalāʾil al-Nubuwwa,
al-Bayhaqī, al-Maḥāsin wa-l-Masāwiʾ,
al-Kalā'ī, al-Iktifāʾ fī maghāzī rasūl Allāh wa-l-Thalātha al-Khulafāʾ,
al-Kalbī, Jamharat al-Nasab,
al-Maqrīzī, Imtāʿ al-asmāʾ,
al-Muqatil, Tafsir, ii, 555
al-Nuwayri, Nihayat al-arab fi funin al-adab,
al-Suhayli, Raud al-Unuf.
al-Waqidi, Kitab al-Ridda,
V. Barthold, Musaylima, in id., Sohineniya, 10 vols., Moscow 1963-73, vi, 549-74
Vacca, Sadjah, in EI 2, viii, 738-9
M. Watt, Musaylima, in EI 2, vii, 664-5
http://islamicencyclopedia.org/
http://www.al-islam.org/the-message-ayatullah-jafar-subhani.
Wikipedia,
Qur'an