pytheya.blogspot.com Webutation

২০ এপ্রিল, ২০১২

Accepting Islam: ইহুদি পন্ডিতের ইসলাম গ্রহণ।


আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম ছিলেন মদিনাবাসী ইহুদি সমাজের প্রধানতম পন্ডিত। মদিনা ও পার্শ্ববর্তী পল্লীসমূহের সকল ইহুদি তাকে বিশেষ ভক্তি ও শ্রদ্ধার চোখে দেখত। মদিনায় মুহম্মদের আগমনের পর আব্দুল্লাহ তাকে পরীক্ষা করতে এলেন। আবু আইয়ূব আনসারীর গৃহে উপস্থিত হলেন এবং ধর্মতত্ত্ব সংক্রান্ত কয়েকটি জটিল প্রশ্ন করে তাকে তার মীমাংসা করে দিতে বললেন। মুহম্মদ সংক্ষেপে মাত্র কয়েকটি কথায় তার সন্তোষজনক উত্তর দিলেন। আব্দুল্লাহ সন্তুষ্ট চিত্তে ইসলাম গ্রহণ (Accepting Islam) করলেন। 

ইসলাম গ্রহণের পর তিনি বললেন, ‘ইহুদিরা আমাকে তাদের প্রধান পন্ডিত ও সমাজপতি বলে বিশ্বাস করে থাকে, আমার পিতা সম্বন্ধেও তাদের এরূপ বিশ্বাস ছিল। এখন আপনি তাদেরকে ডেকে প্রথমে আমার সম্পর্কে জিজ্ঞেস করুন। অতঃপর আমার ইসলাম গ্রহণের বিষয় প্রকাশ করুন। তারপর তাদের প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করুন।’

মুহম্মদ ইহুদিদের ডেকে তাদেরকে সত্যধর্ম ইসলাম গ্রহণ করতে উপদেশ দিলেন। বলাবাহুল্য ইহুদিরা তা স্বীকার করল না। তখন তিনি তাদেরকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘তোমাদের আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম লোকটি কেমন?’
তারা বলল, ‘তিনি মহাপুরুষের বংশধর। নিজেও একজন মহাপুরুষ। তিনি মহাপন্ডিতের বংশধর এবং নিজেও একজন মহাপন্ডিত। তিনি আমাদের সরদারজাদা সরদার।’
তিনি বললেন, ‘আচ্ছা, আব্দুল্লাহ যদি আমাকে সত্য নবী বলে স্বীকার করে ইসলাম গ্রহণ করে?’
তারা বলল, ‘কি সর্বনাশ! তা-কি কখনও সম্ভব!’

মুহম্মদের আহবানে আব্দুল্লাহ অন্তরাল থেকে বের হলেন এবং সমবেত ইহুদিদেরকে সম্বোধন করে বললেন, ‘হে আমার সম্প্রদায়! ইনিই আল্লাহর সেই সত্য রসূল এবং আমি তার উপর বিশ্বাস এনেছি। তোমরা সকলে ইতিপূর্বে তার সম্পর্কে জেনেছ, সুতরাং তার উপর বিশ্বাস আন- মুক্তি পাবে।’ 

ইহুদিরা তীব্র অবিশ্বাস নিয়ে আব্দুল্লাহর কথা শুনল। তারপর মুহম্মদকে বলল, ‘আমরা প্রথমে মিথ্যে বলেছি। সত্য কথা বলতে কি, এই আব্দুল্লাহ একটা আস্ত পাজী, ভয়ানক পাষন্ড, আর তার চৌদ্দপুরুষও ছিল পাষন্ড।’
মুহম্মদ বললেন, ‘আব্দুল্লাহ আমার উপর বিশ্বাস স্থাপন করেছে এবং আমার পক্ষে সাক্ষ্য দিচ্ছে। অথচ তোমরা অহংকার করছ! সুতরাং তোমাদের চেয়ে অবিবেচক আর কে? আর আল্লাহ তো অবিবেচকদের পথ দেখান না।’
এরই পরিপ্রেক্ষিতে এই আয়াতসমূহ নাযিল হয়েছিল-বল, তোমরা কি ভেবে দেখেছ কি, যদি এটা আল্লাহর পক্ষ থেকে হয় এবং তোমরা একে অমান্য কর এবং বনি ইস্রায়েলীর একজন স্বাক্ষী এর পক্ষে সাক্ষ্য দিয়ে এতে বিশ্বাস স্থাপন করে, আর তোমরা অহংকার কর, তবে তোমাদের চেয়ে অবিবেচক আর কে হবে? নিশ্চয় আল্লাহ অবিবেচকদেরকে পথ দেখান না।(৪৬:১০)

ইসলাম গ্রহণের পর আব্দুল্লাহর ধারণা হল, যেহেতু মূসার শরীয়তে শনিবারকে পবিত্র দিন হিসেবে সম্মান করা ওয়াজিব, কিন্তু মুহম্মদের শরীয়তে তার সম্মান করা ওয়াজিব নয়। আবার মূসার শরীয়তে উটের মাংস হারাম, কিন্তু মুহম্মদের শরীয়তে তা ভক্ষণ করা ফরজ নয়। সুতরাং আমরা যদি যথারীতি শনিবারের প্রতি সম্মান প্রদর্শণ করতে থাকি এবং উটের মাংসকে হালাল জেনেও কার্যতঃ তা বর্জন করি, তাহলে তো দু‘কূলই রক্ষা পায়-মূসার শরীয়তের প্রতিও আস্থা রইল, আবার মুহম্মদের শরীয়তেরও কোন বিরোধিতা হল না। এতে হয়তঃ আল্লাহর অধিকতর আনুগত্য এবং ইসলামে বেশী বিনয় প্রকাশ পাবে। 

এরই পরিপ্রেক্ষিতে এই আয়াত নাযিল হল-অতঃপর তোমাদের মাঝে পরিস্কার নির্দেশ এসে গেছে বলে জানার পরও যদি তোমারা পদঙ্খলিত হও, তাহলে নিশ্চিত জেনে রেখ, আল্লাহ পরাক্রমশালী, বিজ্ঞ।(২:২০৯)

সমাপ্ত।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন