pytheya.blogspot.com Webutation

৩ মার্চ, ২০১২

Bani Israel: ইস্রায়েলীদের মূর্ত্তিপূজার প্রতি আকর্ষণ।



বনি ইস্রায়েলী (Bani Israel)রা যে পথ দিয়ে যাচ্ছে তা কনানে যাবার সংক্ষিপ্ত বা সোজা রাস্তা নয়। মূসা ইস্রায়েলীদেরকে নিয়ে চললেন দক্ষিণে সীনাই পর্বতের দিকে। এই যাত্রায় লোহিত সাগর পার হয়ে ইস্রায়েলীরা শূর নামে এক মরুএলাকায় এসে পৌঁছিল, তারপর তারা তিন দিন হেঁটে এমন একস্থানে এল, যে স্থানের নাম মোরিয়া, কারণ সেখানে পানি ছিল তিতা। এরপর তারা এলিম নামে একটা মরু উদ্যানের কাছে উপস্থিত হল এবং সেখানে ছাউনি ফেলল। সেখান থেকে তারা যাত্রার দ্বিতীয় মাসের পনের দিনের দিন সীন প্রান্তরে প্রবেশ করল, যা ছিল লোহিত সাগরের পূর্বতীরের বিস্তৃত বালুকাময় সমতল ভূমি।

যাত্রার এক পর্যায়ে ইস্রায়েলীরা রফীদিনে এসে পৌঁছিল। রফীদিন অর্থ বিশ্রাম স্থান। এখানেই ইদোমীয়দের একগোত্র অমালেকীয়াদের সংস্পর্শ্বে এল তারা। তারা তাদের দেবদেবতাদের দেখতে পেল এবং তৎক্ষণাৎ মূর্ত্তিপূজার প্রতি আকৃষ্ট হল এবং তাদের ঐ স্থূল রীতি-নীতি পছন্দ হয়ে গেল। 

একদল ইস্রায়েলী এসে মূসাকে বলল, ‘হে মূসা, এখানকার লোকদের নানা ধরণের উপাস্য দেবতা রয়েছে দেখতে পাচ্ছি। তুমি আমাদেরকেও ওদের দেবতাদের মত একটি দেবমূর্ত্তি গড়ে দাও, যাতে আমরা একটা দৃষ্ট বস্তুকে সামনে রেখে এবাদত-বন্দেগী করতে পারি; আল্লাহর সত্ত্বা তো আর আমাদের সামনে আসে না।’ 
মূসা বললেন, ‘তোমরা তো এক আহম্মকের জাত। এসব কাজ যা লোকে করছে তা তো ধ্বংস করা হবে, আর তারা যা করছে তাও ভিত্তিহীন।’ 

তারা তবুও দেবতার জন্যে অনুনয় বিনয় করতে থাকল। ফলে মূসা ক্ষিপ্ত হয়ে বললেন, ‘কি! আল্লাহকে ছেড়ে তোমাদের জন্যে আমি অন্য উপাস্য খুঁজে বেড়াব, যখন তিনি তোমাদেরকে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছেন বিশ্বজগতের উপর? 

মূসা ইস্রায়েলীদের স্বভাব চরিত্র সম্পর্কে বিশেষ অবগত ছিলেন। তিনি জানতেন একবার যা তাদের মাথায় ঢুকে তা সহজে বের হয় না। সুতরাং এই আহম্মক জাতির সঙ্গে কঠোর ব্যবহার কোন সুফল বয়ে আনবে না। বরং এদের মধ্যে থেকে দেবতার বিষয়টি দূর করতে হবে। তাই তিনি তৎক্ষণাৎ সূর নরম করে বললেন যে, মহান আল্লাহ-ই তাদের একমাত্র দেবতা, উপাস্য। আর তিনি বনি-ইস্রায়েলীদেরকে তাদের বিগত দিনের দূরাবস্থার কথা স্বরণ করিয়ে দিলেন এই বলে যে, তারা ফেরাউন সম্প্রদায়ের হাতে এতই দুর্দশাগ্রস্থ ছিল যে, তাদের পুত্রসন্তানদেরকে হত্যা করে কন্যা সন্তানদেরকে অব্যাহতি দেয়া হত সেবাদাসী বানিয়ে রাখার উদ্দেশ্যে। অতঃপর আল্লাহ তাদেরকে সেই আযাব থেকে মুক্তি দিয়েছেন। এই অনুগ্রহের প্রভাব কি এই যে তারা তাঁর সাথে দুনিয়ার নিকৃষ্টতর পাথরকে অংশীদার সাব্যস্ত করবে? এটা তো মহা কৃতঘ্নতা। 

এ সম্পর্কিত কোরআনের আয়াতসমূহ- ‘আর আমি বনি-ইস্রায়েল সম্প্রদায়কে সাগর পার করিয়ে দেই। তারপর তারা এক জাতির সংস্পর্শ্বে এল যারা মূর্ত্তিপূজা করত। তারা বলল, ‘হে মূসা! ওদের দেবতার মত আমাদের জন্যেও এক দেবতা গড়ে দাও।’ 
সে বলল, ‘তোমরা তো এক আহম্মকের জাত। এসব কাজ যা লোকে করছে তা তো ধ্বংস করা হবে, আর তারা যা করছে তাও ভিত্তিহীন।’

সে বলল, ‘কি! আল্লাহকে ছেড়ে তোমাদের জন্যে আমি অন্য উপাস্য খুঁজে বেড়াব যখন তিনি তোমাদেরকে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছেন বিশ্বজগতের উপর? (৭:১৩৮-১৪০)

আর সে সময়ের কথা স্বরণ কর, যখন আমি তোমাদেরকে ফেরাউনের লোকদের কবল থেকে মুক্তি দিয়েছি; তারা তোমাদেরকে দিত নিকৃষ্ট শাস্তি, তোমাদের পুত্রসন্তানদেরকে হত্যা করত এবং বাঁচিয়ে রাখত কন্যাদেরকে। এতে তোমাদের প্রতি তোমাদের পরওয়ারদেগারের বিরাট পরীক্ষা রয়েছে। (৭:১৪১)

সমাপ্ত।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন