pytheya.blogspot.com Webutation

১০ মার্চ, ২০১২

Eli: এলি ও তার সন্তানদের কাহিনী।


শীলোস্থিত ধর্মধামের ধর্মগুরু এলি (Eli)-র ছিল দু‘পুত্র- পিনহস এবং হফনি। দু‘জনই ছিল লোভী এবং স্বেচছাচারী। অনৈতিক কাজকর্ম ছিল তাদের নিত্যদিনের অভ্যাস। দয়াময় খোদার প্রতি তাদের কোন মনোযোগ ছিল না। ঈমাম হিসেবে লোকদের সঙ্গে তাদের ব্যাবহার ছিল এই রকম-
           
কাঁটাযুক্ত চামুচ দিয়ে মাংসের পাত্রে..
কোন লোকের পশু উৎসর্গের মাংস যখন সিদ্ধ করার জন্যে প্রস্তুত হত, তখন তাদের চাকরেরা তিন কাঁটা যুক্ত একটা বড় চামুচ নিয়ে আসত। অতঃপর যে লোকটি পশু উৎসর্গ করেছে তাকে বলত, ‘আগুনে ঝলসাবার জন্যে ঈমামদেরকে মাংস দাও। তিনি তোমার কাছ থেকে সিদ্ধ মাংস নেবেন না, কাঁচা মাংস নেবেন।’
সেই লোকটি যদি বলত, ‘প্রথমে চর্বি পোড়াতে হবে, তারপর তুমি তোমার ইচ্ছেমত মাংস নিয়ে যেও।’
তবে তারা বলত, ‘না, এখনই তা দিতে হবে, না দিলে আমরাই তা নিয়ে নেব।’
  
সেই চাকরেরা তাদের হাতের কাঁটাযুক্ত চামুচ দিয়ে মাংসের পাত্রে- হাড়িতে কিংবা কড়াইতে খোঁচা মারত এবং সেই কাঁটাতে যে মাংস উঠে আসত তা সবই নিয়ে যেত। ইস্রায়েলের যতলোক শীলোতে আসত তাদের প্রত্যেকের প্রতি তারা এইরকম ব্যাবহারই করত।

খোদার দৃষ্টিতে সেই যুবক ঈমামদের পাপ ভীষণ হয়ে দেখা দিল, কারণ তারা তাঁর উদ্দেশ্যে এইসব উৎসর্গের জিনিসগুলো তুচ্ছ করত। শুধু এতেই তারা ক্ষান্ত ছিল না, যেসব স্ত্রীলোকেরা সেবা কাজের জন্যে মিলন তাম্বুর দ্বারদেশে আসত তাদেরকে ফূঁসলিয়ে তারা পিছনের কক্ষে নিয়ে যেত। অতঃপর তাদের সাথে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হত। এলি এসময় যথেষ্ট বৃদ্ধ বয়সে উপনীত হয়েছিলেন। ইস্রায়েলীদের প্রতি তার পুত্রদের সমস্ত ব্যাবহারের কথা এবং সেবা কাজের জন্যে আগত স্ত্রীলোকদের সঙ্গে অপকর্মের কথা তার কানে গেল। তিনি পুত্রদেরকে ডেকে বললেন, ‘তোমরা এ-কি করছ? তোমাদের অনৈতিক কাজের কথা আমি লোক মুখে শুনতে পাচ্ছি। না, না, আমার সন্তানেরা, লোকদেরকে যেসব কথা বলাবলি করতে শুনছি- তা জঘন্য। মানুষ যদি মানুষের বিরুদ্ধে পাপ করে তবে খোদা তার মীমাংসা করতে পারেন, কিন্তু মানুষ যদি খোদার বিরুদ্ধে পাপ করে, তবে তার জন্যে কে মিনতি করতে পারে?’

পুত্ররা এলির কথা এক কান দিয়ে শুনল আর অন্য কান দিয়ে বের করে দিল। অতঃপর তাদের এই অনিবারিত পাপসমূহ এলির জন্যে কঠোর সতর্কবাণী বয়ে নিয়ে এল। 

একদিন প্রার্থনার সময় একজন ফেরেস্তা এসে এলিকে জানাল-‘তোমার পূর্বপুরুষেরা যখন মিসরে ফেরাউনের অধীনে ছিল তখন তাদের কাছে কি খোদা নিজেকে স্পষ্ট করে প্রকাশ করেননি? ইস্রায়েলীদের সমস্ত গোষ্ঠির মধ্যে থেকে কি তিনি লেবীর গোষ্ঠীকে বেঁছে নেননি? যাতে তারা ঈমাম হয়ে তাঁর বেদীর কাছে গিয়ে ধূপ জ্বালাতে পারে? ইস্রায়েলীদের সমস্ত পোড়ান উৎসর্গের ভাগ কি তিনি তাদেরকে দেননি? তাহলে তাঁর গৃহে যেসব উৎসর্গ করতে তিনি আদেশ দিয়েছেন, তোমরা কেন সেইসব উৎসর্গগুলোর অসম্মান করছ? ইস্রায়েলীদের উৎসর্গগুলোর সবচেয়ে ভাল অংশটুকু দিয়ে নিজেদের মোটাসোটা করে কেন তুমি তাঁর চেয়ে তোমার সন্তানদেরকে বড় করে দেখছ?

--খোদা অবশ্য বলেছিলেন যে, লেবী বংশের লোকেরা চিরকাল তাঁর সেবাকাজ করবে, কিন্ত এখন তা আর চলবে না। ‘যারা আমাকে সম্মান করবে আমি তাদেরকে সম্মান করব এবং যারা আমাকে তুচ্ছ করবে, তাদেরকে তুচ্ছ করা হবে।’ সময় আসছে যখন তিনি তোমার বংশের লোকদের শক্তি এমনভাবে শেষ করে দেবেন যে, তাদের একটি লোকও বৃদ্ধ বয়স পর্যন্ত বাঁচবে না। আর তুমি তাঁর গৃহের দুর্দশা দেখতে পাবে। তবে তোমার বংশের সবাইকে তিনি তাঁর বেদী থেকে ছেঁটে ফেলবেন না, যাতে তাদের দরুন চোখের পানিতে তোমার দৃষ্টি শক্তি নষ্ট হয় এবং তুমি অন্তরে যন্ত্রণা পাও। 

শমুয়েল স্বপ্নে দেখলেন..
শমূয়েল স্বপ্নের কথা এলিকে বলছেন।
--তোমার দু‘পুত্র হফনি ও পীনহস একই দিনে মারা যাবে। আর সেটাই হবে তোমার জন্যে একটা চিহ্ন। কিন্তু তিনি তাঁর জন্যে একজন বিশ্বস্ত ঈমাম দাঁড় করাবেন, যে তাঁর ইচ্ছেমত কাজ করবে। তোমার বংশের যারা বেঁচে থাকবে, তারা এক টুকরো রূপা ও রুটির জন্যে তার কাছে এসে মাথা নত করবে এবং একটি ঈমাম পদ পাবার জন্যে মিনতী করবে, যাতে সে দু'বেলা দু'মুঠো খেতে পায়।’

‘চোরায় না শোনে ধর্মের কাহিনী।’ -পীনহস ও হফনি এই সতর্কবাণীও উপেক্ষা করল।
একদিন রাতে শমুয়েল স্বপ্নে দেখলেন এক দেবদূত তাকে বলছে, ‘এলির বংশের সমন্ধে যা কিছু বলা হয়েছে তা শীঘ্রই পূর্ণ হবে। সে জানত যে, তার পুত্ররা নিজেদের মাথায় অভিশাপ ডেকে আনছে, অথচ সে তাদের সংশোধনের যথেষ্ট চেষ্টা করেনি। তাই এখন থেকে পশু উৎসর্গ কিংবা অন্য কোন উৎসর্গ দ্বারা তার বংশের পাপ কখনও ঢাকা দেয়া যাবে না।’

পীনহস ও হফনি সিন্দুকের সঙ্গে।
পাশের কক্ষ থেকে এলি ঘুমের মধ্যে শমুয়েলের কথাবার্তা শুনতে পেয়ে বুঝতে পারলেন সে বাণীপ্রাপ্ত হয়েছে। এদিকে শমুয়েল শয্যা থেকে উঠে এসে এলিকে ডেকে তুলল এবং তাকে তার স্বপ্নের বৃত্তান্ত বিবৃত করল। 
সবশুনে এলি একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললেন।

এসময় প্যালেষ্টীয়রা প্রাচীন যিবুষের (জেরুজালেমের) দিকে অগ্রসর হল এবং একটি যুদ্ধে চার হাজার হিব্রুকে হত্যা করল। এ কারণে পরবর্তী যুদ্ধের সময় ইস্রায়েলীরা জয়লাভের আশায় নিয়ম সিন্দুক সঙ্গে নিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল। এলির পুত্র পীনহস ও হফনি নিয়ম সিন্দুকের (Ark of the Covenant) সঙ্গে গেল।

সাক্ষ্য সিন্দুকটি সেনা ছাউনিতে এসে পৌঁছিলে ইস্রায়েলীরা এমন জোরে চিৎকার শুরু করল যে, চতুর্দিকে সাড়া পড়ে গেল। প্যালেস্টীয়রা এই আওয়াজ শুনে একে অন্যেকে জিজ্ঞেস করল, ‘ইব্রীয়দের ছাউনিতে এ কিসের আওয়াজ হচ্ছে?’

তারা খোঁজ করে জানতে পারল- ইস্রায়েলীদের দেবতা- খোদার সাক্ষ্য সিন্দুকটি তাদের ছাউনিতে এসেছে। এতে তারা ভয়ার্ত কন্ঠে বলল, ‘সর্বনাশ! এই শক্তিশালী দেবতার হাত থেকে কে আমাদেরকে রক্ষা করবে? মরুএলাকায় নীল নদের পানিতে ডুবিয়ে এই দেবতাই তো মিসরীয়দের মেরে ফেলেছিলেন। হে প্যালেস্টীয়রা! প্রস্তুত হও, যুদ্ধ কর, তা না হলে ইব্রীয়রা যেমন তোমাদের দাস হয়েছিল, তেমনি তোমরাও তাদের দাস হয়ে থাকবে।’

এলি আসন থেকে পিছনে ঢলে পড়ে গেলেন। 
একটি ভয়াবহ যুদ্ধ শুরু হল। প্যালেষ্টীয়রা নতুন উদ্যমে যুদ্ধ করে নিয়ম সিন্দুক দখল করল এবং ত্রিশ হাজার ইস্রায়েলীকে হত্যা করল। নিহতদের মধ্যে পীনহস ও হফনিও ছিল।

পথের পাশে একটা আসনে বসে অধীর আগ্রহে এলি যুদ্ধ সংবাদের প্রতীক্ষা করছিলেন। এসময় যুদ্ধ ক্ষেত্র থেকে এক ব্যক্তি দৌঁড়ে এসে ব্যক্তিগত ভাবে তাকে জানাল- ‘শত্রুরা সিন্দুক দখল করেছে, আর পীনহস ও হফনি যুদ্ধে নিহত হয়েছেন।’

এই দুঃসংবাদ শুনেই এলি নিজ আসন থেকে পিছনে ঢলে পড়ে গেলেন এবং ঘাড় ভেঙ্গে মৃত্যুবরণ করলেন। তার বয়স এসময় হয়েছিল আটানব্বুই বৎসর। এদিকে পীনহসের স্ত্রী, স্বামী ও শ্বশুরের মৃত্যু সংবাদ শুনে অপূর্ণ সময়ে এক পুত্রসন্তান জন্ম দিয়ে মারা গেল।

নিয়ম সিন্দুক প্যালেস্টীয়দের মধ্যেই রইল। তারা সেটি এবন-এষর থেকে অসদোদ শহরে নিয়ে গেল। সিন্দুকটি তারা দাগোন (Dagon) দেবতার মন্দিরে নিয়ে গিয়ে দাগোনের মূর্ত্তির পাশেই রাখল।

সমাপ্ত।
ছবি: ucqld.wordpress, joyfulpapist.wordpress, downtownmonks.blogspot, souljournaler.blogspot.

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন